ভাগ্য খুলল শোয়েব মালিকের

শোয়েব মালিকের কপালই বলতে হবে! পাকিস্তানের প্রথম ঘোষিত বিশ্বকাপ দলে জায়গা হয়নি তার। গতপরশু ১৫ জনের স্কোয়াডে তিনটি পরিবর্তন আনলেও মালিক উপেক্ষিতই ছিলেন। কিন্তু ৩৯ বছর বয়সী এই ক্রিকেটারকে শেষ পর্যন্ত ডাকতেই হয় পাকিস্তানের নির্বাচকদের।

চোটের কারণে একেবারে শেষ মুহূর্তে পাকিস্তানের বিশ্বকাপ স্কোয়াড থেকে ছিটকে গেছেন মিডল অর্ডার ব্যাটার শোয়েব মাকসুদ। আর তাতেই কপাল খুলেছে শোয়েব মালিকের। গত ৬ অক্টোবর ন্যাশনাল টি২০ কাপের একটি ম্যাচে অংশ নিয়ে পিঠের নিচের অংশে চোট পান মাকসুদ।

পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ডের (পিসিবি) প্রধান নির্বাচক মোহাম্মদ ওয়াসিম তার বাদ পড়ার বিষয়ে বলেন, ‘এভাবে শেষ মুহূর্তে বিশ্বকাপ থেকে বাদ পড়ায় ভেঙে পড়েছেন মাকসুদ। এই বিশ্বকাপের জন্য কঠোর পরিশ্রম করেছিলেন তিনি, দারুণ ছন্দেও ছিলেন। তার বদলে টিম ম্যানেজমেন্টের সঙ্গে আলোচনা করে শোয়েব মালিককে দলে নিয়েছি। আশা করছি শোয়েবের অভিজ্ঞতা বিশ্বকাপে আমাদের কাজে লাগবে।’

২০০৭ সালে প্রথম টি২০ বিশ্বকাপে শোয়েব মালিকের নেতৃত্বে খেলেছিল পাকিস্তান। ২০০৯ সালে ট্রফিজয়ী দলের অন্যতম সদস্য ছিলেন তিনি। এ ছাড়া ২০১২, ২০১৪ ও ২০১৬ টি২০ বিশ্বকাপেও খেলেন তিনি। তবে গত বছর ইংল্যান্ড সফরের পর থেকে তিনি আর পাকিস্তানের হয়ে মাঠে নামেননি। নির্বাচকরাও ভবিষ্যতের কথা চিন্তা করেই তার বদলে বিশ্বকাপে তরুণদের প্রাধান্য দিয়েছিলেন।

তবে জাতীয় দলে উপেক্ষিত থাকলেও বিশ্বব্যাপী ফ্র্যাঞ্চাইজি লিগে নিয়মিত খেলে যাচ্ছিলেন মালিক। গত এক বছরে ৪৯ ম্যাচে তার ব্যাটিং গড় ৩০.৮৫, স্ট্রাইক রেট ১৩৩.১৬। বিশ্বকাপ দলে ডাক পাওয়ায় পাকিস্তানের হয়ে আইসিসি ইভেন্টে সবচেয়ে বেশি ম্যাচ খেলার সুযোগ এখন মালিকের সামনে।

সূত্রঃ samakal