শীর্ষ সন্ত্রাসী জয় এখন কানাডার শীর্ষ ব্যবসায়িক উদ্যোক্তা?

নিউজ ডেস্ক : দেশের অন্যতম শীর্ষ সন্ত্রাসী খন্দকার তানভীর ইসলাম ওরফে জয় ইন্টারপোলের ধরা ছোঁয়ার বাইরে গিয়ে এবার কানাডায় ভিন্ন নামে শীর্ষ ব্যবসায়িক উদ্যোক্তা হয়ে জীবন যাপন করছেন।

সঙ্গে দেশের আন্ডারওয়ার্ল্ডের সন্ত্রাসীগ্রুপগুলোকে পরিচালনা করছেন। এমনই চাঞ্চল্যকর খবর প্রকাশ করেছে কানাডার অন্যতম টিভি ও জাতীয় দৈনিক গ্লোবাল নিউজ

গণমাধ্যমটির স্টুয়ার্ড বেলএন্ড্রু রাসেলের দীর্ঘ অনুসন্ধানের মাধ্যমে করা একটি প্রতিবেদন আজ গ্লোবাল নিউজে প্রকাশিত হওয়ার পর দেশটিতে এ বিষয়ে তোলপাড় চলছে। প্রতিবেদনটি একইসঙ্গে প্রকাশ হয়েছে গ্লোবাল নিউজের টিভি চ্যানেলেও।

প্রতিবেদনটিতে বলা হয়েছে, খন্দকার তানভীর ইসলাম ওরফে জয় কানাডায় নাম পাল্টে তারেক রানা নামে ৫ বছর আগে প্রবেশ করেন। অল্প সময়ের মধ্যেই তিনি টরন্টোর পূর্ব শহর অ্যাজাক্সে একটি উন্নয়ন সংস্থা চালু করেন এবং রাজনৈতিকভাবে স্থানীয় এমপি ও মন্ত্রীদের সঙ্গে সখ্যতা গড়ে তোলেন। গ্লোবাল উদ্যোক্তা এবং সমাজসেবী হিসাবে খ্যাতি অর্জন করে বেশ কিছু পুরষ্কার ও অ্যাওয়ার্ড লাভ করেন।

জয়ের অনুদান

সেখানে তিনি বিভিন্ন দাতব্য সংস্থা এবং রাজনৈতিক প্রার্থীদের অনুদান দিয়েছিলেন। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তাকে বিভিন্ন এমপি এবং মেয়রদের সঙ্গে দেখা গেছে।

কানাডায় তিনি নাগরিক পুরষ্কার জিতেছেন এবং অন্টারিওর অ্যাজাক্সে তাকে ২০১৮ সালের সেরা উদ্যোক্তা হিসেবেও ঘোষণা করা হয়।

তিনি নিজেকে সেখানে ভারতীয় নাগরিক হিসেবে দাবি করেন এবং ভারতীয় পাসপোর্টধারী হিসেবে তার পরিচয় পাওয়া গেছে।

কানাডায় নিজ কোম্পানির সামনে রানা ওরফে জয়

তবে গ্লোবাল নিউজ এবং বাংলাদেশের ডেইলি স্টার পত্রিকার তদন্তে রানা এবং আন্তর্জাতিক পলাতক এক অপরাধী সংগঠনের নেতৃত্ব দেওয়ার জন্য একাধিক চাঁদাবাজি ও হত্যার পিছনে মিল খুঁজে পেয়েছে।

‘সেভেন স্টার’ সন্ত্রাসী গোষ্ঠীর অভিযুক্ত নেতা খন্দকার তানভিরুল ইসলাম ওরফে জয়, রানা ও ওয়ান্টেড ব্যক্তি দু’জনই একই রকম এবং একইভাবে তিনি ভারতের কলকাতায় বসবাস করেছিলেন।

পুলিশ ও আদালতের রেকর্ডে অভিযোগ করা হয়েছে যে ‘সেভেন স্টার’ গ্রুপের নেতা হিসাবে তাঁর সহযোগী একজনকে ২০০৭ সালে কোলকাতায় গ্রেপ্তার করা হয়েছিল।

২০০৭ সালে গ্রেপ্তারের পর তোলা একটি ছবির সঙ্গে তার বর্তমান ‘রানা’ হিসেবে কানাডিয়ান ইমিগ্রেশন কর্তৃপক্ষের কাছে থাকা ছবির সঙ্গে মিল পাওয়া গেছে।

সঙ্গে মিলেছে মোঃ তারেক রানা নামের একটি ভারতীয় পাসপোর্টও। যেটি ভারতের আদালতে দেখানো হয়েছিল। সেখানে তার জন্মের তারিখ, পিতার নাম ও স্ত্রীর নাম হুবহু মিল রয়েছে।

ইন্টারপোলে জয়ের বর্ণণা

পাসপোর্ট দেখিয়ে রানা নিশ্চিত করেছেন যে এটি তারই ছিল তবে তিনি কলকাতায় বা অন্য কোথাও গ্রেপ্তার হওয়ার বিষয়টি অস্বীকার করেছেন এবং পরিচয় চুরির শিকার হওয়ার দাবি করেছেন তিনি।

এক ই-মেইলের প্রতিক্রিয়ায় তিনি বলেন, “আমি এখন সত্যিই হতবাক হয়েছি কারণ কোনও কারণে কেউ আমার পাসপোর্ট এবং ছবি ব্যবহার করছে,”।

তিনি দাবি করেন যে, তিনি ওয়ার্ক পারমিটে কানাডায় বসবাসকারী একজন ভারতীয় ব্যবসায়ী। তিনি এবং তার অভিবাসন আইনজীবী বলেছেন যে তিনি আংশিক ফিঙ্গার প্রিন্টের মাধ্যমে রয়েল কানাডিয়ান মাউন্টেড পুলিশ (আরসিএমপি) এর মাধ্যমে ক্লিয়ারেন্স পান।

GTA property entrepreneur haunted by crime boss doppelganger

Tarekh Rana moved to Canada five years after starting his own business and associated with the Greater Toronto Area elite. But questions about his past started to reveal similarities with a fugitive Bangladesh crime boss.READ MORE: https://bit.ly/2OMAfnw

Posted by Global News on Wednesday, December 4, 2019

আদালতের নথি অনুযায়ি, ১২ বছর আগে ভারতে গ্রেপ্তার হওয়া ব্যক্তির সাথে রানা’র মতো শারিরীক কাঠামো ও চিকিৎসার রেকর্ডে মিল রয়েছে। ২০০৭ সালের শুরুর দিকে গুরুতর বাতের চিকিত্সার জন্য কলকাতায় উভয় পায়েই তার অস্ত্রোপচার করা হয়েছিল যা প্রতিবেদকের কাছে ‘রানা’ স্বীকার করেছেন।

জয় হিসাবে অভিযুক্ত ব্যক্তির ভারতীয় আদালতের ফাইলটিতে একটি ড্রাইভারের লাইসেন্স, ব্যাংকের বিবৃতি, ব্যবসায়িক রেকর্ড এবং ট্যাক্স রিটার্ন অন্তর্ভুক্ত রয়েছে – সবই মোঃ তারেক রানা নামে। তারা সন্দেহভাজন হিসাবে ৩ মার্চ, ১৯৬৭ সালে জন্মগ্রহণ করেছেন বলে বর্ণনা দেয়া হয়েছে। অন্টারিওর সম্পত্তি রেকর্ডে দেখা যায় যে আজাক্স শহরের রিয়েলএস্টেট এই ব্যবসায়ির একই জন্মের তারিখ রয়েছে।

কলকাতা গাউস ফ্যাশন নামে একটি পোশাক প্রতিষ্ঠানের মালিক হিসাবে ভারতীয় আদালতে তাকে সন্দেহভাজন হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছিল। রানা গ্লোবাল নিউজকে বলেছিলেন যে কানাডায় যাওয়ার আগে ২০১৩ সালে তিনি তা বিক্রি করে দেন।

গ্রেপ্তার হওয়া ব্যক্তির পিতার নামের সাথে আদালতে উপস্থাপিত নামে মিল রয়েছে। আজাক্স শহরের এই ব্যবসায়ী গ্লোবাল নিউজকে বলেছিলেন যে এটি তাঁর পিতার নাম। আদালতের ফাইলে স্বাক্ষরটিও রানার সাথে মিলে যাওয়ার তথ্য প্রকাশ করেছে গ্লোবাল নিউজ।

প্রতিবেদনটি প্রকাশের পর থেকে জয় পলাতক রয়েছে। তার ছবি ইন্টারপোল ওয়েবসাইটে প্রকাশিত হয়েছে, যেখানে তাকে হত্যা ও বিস্ফোরক দখলের জন্য তালিকাভুক্ত করা হয়েছে। তিনি বাংলাদেশ পুলিশের মোস্ট ওয়ান্টেড তালিকায়ও রয়েছেন।

বাংলাদেশ পুলিশের সহকারী মহাপরিদর্শক মহিউল ইসলাম গ্লোবাল নিউজকে বলেন, “জয় শীর্ষ সন্ত্রাসীদের তালিকায় গুরুতর অপরাধে অভিযুক্ত হয়ে ও দোষী সাব্যস্ত হয়ে বাংলাদেশ পুলিশের মোস্ট ওয়ান্টেড তালিকায় রয়েছে।”

এই কর্মকর্তা বলেন, তার বিরুদ্ধে যে অভিযোগগুলো হচ্ছে- তিনটি চাঞ্চল্যকর হত্যাকাণ্ড, দুটি হত্যার চেষ্টা, আগ্নেয়াস্ত্র দিয়ে গুরুতর আহত করা এবং চাঁদাবাজিসহ বিভিন্ন অপরাধে অভিযুক্ত।

‘রানা’ স্বীকার করেছেন যে তিনি পলাতক ব্যক্তির মতো ছিলেন এবং আরসিএমপিও একই সন্দেহ করেছিল। তবে ইন্টারপোলের প্রকাশিত ছবিটি দেখে তার প্রতিক্রিয়া ছিল শীর্ষ সন্ত্রাসী ‘জয়’ নামের ছবির মানুষটি তিনি নন।

বাংলাদেশ পুলিশের প্রকাশিত ও প্রচারিত একটি ওয়ান্টেড তালিকা

রানা তখন থেকে কানাডা ত্যাগ করেছেন। তিনি বলেছিলেন যে তিনি ভারতে ছিলেন তার ব্যবসায়ের জন্য অর্থ সংগ্রহ করে ২৮ শে নভেম্বর কানাডায় ফিরে আসবেন। তবে ফিরে আসার কোনও ইঙ্গিত নেই।

তার অফিসের দরজায় আইনী নোটিশগুলিতে অভিযোগ করা হয়েছে যে তিনি তার ভাড়া প্রদান করতে ব্যর্থ হয়েছেন এবং যারা তার কাছে বিনিয়োগকারীরা বিশ্বাস করে বিপুল অংকের অর্থ বিনিয়োগ করে এখন উৎকণ্ঠায় আছেন।

গ্লোবাল নিউজে তার প্রতিক্রিয়ায় রানা বলেছিলেন যে, তিনি ভারতীয় নাগরিক, অন্যদিকে জয় বাংলাদেশি। তিনি আরও বলেছিলেন যে তিনি জয়ের চেয়ে লম্বা ছিলেন।

টাঙ্গাইলের বানিয়ারাতে জয়ের পৌত্রিক বাড়ি

এছাড়া অভিযুক্ত শীর্ষ সন্ত্রাসী ‘জয়’কে গ্রেপ্তার করার সময় তার পায়ে অস্ত্রপচারের পরে তাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছিল।

তিনি বলেছিলেন, কানাডার স্থায়ী বাসিন্দা হওয়ার জন্য তার বর্তমান আবেদনের অংশ হিসাবে তিনি কলকাতার পুলিশ থেকে একটি পুলিশ ক্লিয়ারেন্স সার্টিফিকেট পেয়েছিলেন। এ প্রসঙ্গে তার ভাষ্য- “যদি আমাকে গ্রেপ্তার করা হত, তবে আমি পুলিশ ক্লিয়ারেন্স সার্টিফিকেট কীভাবে পেলাম ??”

তিনি বলেন, জয়ের অপরাধ বা তার পলাতক জীবন সম্পর্কে তিনি কিছুই জানেন না। তবে জয়ের পলায়নে তার রানা নামের জীবনে ব্যাপক সমস্যা তৈরী হয়। তাছাড়া জয়ের ঢাকার সন্ত্রাসী গ্রুপ “সেভেন স্টার” সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি উল্টো প্রশ্ন করেন যে, সেটি কি?

আদালতে দাখিল করা রানা ওরফে জয়ের ডকুমেন্টস

মিলিওনিয়ার মাইন্ডসেট নামের কানাডিয়ান একটি ম্যাগাজিনে তার সম্পর্কে একটি প্রতিবেদন লেখা হয়েছিল। যেখানে বলা হয়েছে তিনি, এক ভারতীয় নারীর প্রেমের টানে কানাডায় চলে এসেছেন। প্রতিবেদক স্বীকার করেছেন যে, তিনি রানার অফিসে সাক্ষাতকারটি নিয়েছিলেন, যার প্রমাণ হিসেবে এর একটি নোটও তার কাছে রয়েছে।

রানা গ্লোবাল নিউজকে বলেছেন, তিনি কোলকাতায় পায়ের অস্ত্রপচার শেষে থাইল্যান্ড, মালয়েশিয়া এবং অস্ট্রেলিয়ায় তার ব্যক্তিগত “প্রকল্পের” কাজ শেষ করে তিনি প্রথম কানাডায় প্রবেশ করেন।

নিজ অফিসে রানা ওরফে জয়

তিনি বলেন, তারপরে তিনি ভারতে ফিরে এসে অভিবাসী বিনিয়োগকারী হিসাবে কানাডায় ফিরে আসার আবেদন করেছিলেন তবে প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষার অভাবে তাকে তার আবেদন বাতিল করা হয়েছিল। তারপরে তাকে ১০ বছরের একটি ট্যুরিস্ট ভিসা দেয়া হয়।

এরপর কানাডা ডারহাম অঞ্চলে তিনি বসবাস শুরু করেন। পিকারিংয়ে তিনি একটি বাড়ি কিনেছিলেন এবং একটি কোম্পানি চালু করেন। যার কর্পোরেট স্লোগান ছিল “You dream it, we build it!”

অন্টারিও কর্পোরেট রেকর্ডে দেখা যায় যে, SJ71 Ltd. ২১ ফেব্রুয়ারী, ২০১৩ এ প্রাদেশিক সরকারের সাথে নিবন্ধিত হয়েছিল, যার পরিচালক হলেন, রানা ও শোহানা আজমি নামে অপর এক ভারতীয় নারী।

আজমি গ্লোবাল নিউজকে বলেন, তিনি কখনই SJ71 Ltd. পরিচালনা পর্ষদে থাকতে রাজি হননি। তিনি যখন এটি জানতে পারেন, তখন রানাকে বিষয়টি নিয়ে জিজ্ঞাসা করলে সে আজমির পরিবর্তে পরিচালক পদ পরিবর্তনে সম্মত হয়।

অ্যাজাক্সের মেয়র শন কলিয়ার, কাউন্সিলর আসমেদ খান ও লিবারেল পার্টির এমপি মার্ক হল্যান্ডের সাথে রানা ওরফে জয়

কেননা কানাডার অন্টারিওতে ব্যবসা করতে হলে একজন বোর্ড সদস্য হিসেবে কানাডার একজন স্থায়ী বাসিন্দা হতে হবে। যা ট্যুরিস্ট ভিসাধারী হিসেবে রানার ছিল না কিন্তু আজমির ছিল।

রেকর্ডস দেখায় যে আজমিকে ২০১৪ সালে এমন এক উদ্যোক্তা দ্বারা প্রতিস্থাপন করা হয়েছিল যিনি একবার ফেডারেল লিবারেল মনোনয়ন চেয়েছিলেন। রানা আজমিকে নিয়ে প্রশ্নের জবাব দেয়নি।

রানা জানান, কানাডিয়ান কর্তৃপক্ষের সাথে তার ঝামেলা শুরু হয়েছিল ২০১৫ সালে।

মেক্সিকোয় একটি ডেস্টিনেশন ওয়েডিং থেকে ফেরার পথে তাকে ইমিগ্রেশন কর্মকর্তারা জয়ের সাথে তাঁর তুলনা সম্পর্কে প্রশ্ন করেছিলেন। তবে পরের বছর যখন তিনি ওয়ার্ক পারমিটের জন্য আবেদন করেন, তখন তিনি নিজেকে আরসিএমপি তদন্তের অধীনে পেয়েছিলেন।

লিবারেল পার্টির এমপি ও ইমিগ্রেশন মন্ত্রীর হুসেইনের সঙ্গে রানা ওরফে জয়

“তারা আমার মৌখিক স্বীকৃতি নিয়েছিল, তারা আমার ফিঙ্গারপ্রিন্ট নিয়েছিল, সবকিছু,” তিনি বলেছিলেন।

প্রতিবেদনে বলা হয়, এরপরই রানা নিজের অবস্থান শক্ত করতে

তার ওয়ার্ক পারমিটের সুরক্ষার জন্য রানা আজাক্সের লিবারেল দলের সাংসদ মার্ক হল্যান্ডের দ্বারস্থ হন।

এই রানার সাথে মার্ক হল্যান্ড ছাড়াও দেশটির বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ এবং দলীয় লোকজনদের ছবি দেখা গেছে। এছাড়া তাদের দলীয় প্রচারণায় বিভিন্ন সময়ে রানার অর্থায়ানের প্রমাণ মিলেছে।

রানা ২০১৮ সালে কানাডার ইমিগ্রেশনমন্ত্রী আহমেদ হুসেনের সাথে ছবি তোলেন। এছাড়াও আরো আধা ডজন বিরোধীদল ও সরকারি দলের সাংসদ ও প্রদেশের মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে তাকে বিভিন্ন কর্মকান্ডে দেখা গেছে।

অ্যাজাক্সের সেরা উদ্যোক্তা হিসেবে পাওয়া স্মারক

এদিকে তার এসব ছবি প্রকাশের পর বেশ চাপে পড়ে গেছে কানাডার স্থানীয় প্রশাসন। এরই মধ্যে দ্বিতীয়বারের মতো তাকে সেরা উদ্যোক্তা ও জনদরদী ঘোষণার জন্য নির্বাচিত করার পর সেটি তারা সরিয়ে নিয়েছে। বাতিল করা হয়েছে তার আগের সম্মাননাটিও।

শুধু তাই নয় রানাকে দেয়া ওয়ার্ক পারমিট এবং কানাডার স্থানীয় নির্বাচনে রানার অঢেল খরচের জন্য এরই মধ্যে চাপে পড়েছে সংশ্লিষ্টরা।

আরসিএমপি, ইমিগ্রেশন, রিফিউজি এবং সিটিজেনশিপ কানাডা, কানাডা বর্ডার সার্ভিসেস এজেন্সি এবং ডুরহাম পুলিশ রানার মামলায় মন্তব্য করতে প্রতিবেদকের কাছে অস্বীকার করেছে।

ঢা/এমএম

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here

***ঢাকা১৮.কম এ প্রকাশিত কোনও সংবাদ, কলাম, তথ্য, ছবি, কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ। অনুমতি ছাড়া ব্যবহার করলে কর্তৃপক্ষ আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করবে। ( Unauthorized use of news, image, information, etc published by Dhaka18.com is punishable by copyright law. Appropriate legal steps will be taken by the management against any person or body that infringes those laws. )