শিক্ষার্থীদেরকে ভাড়া আদায়ের জন্য চাপ, রিমান্ডে হোস্টেল সুপার

শিক্ষার্থীদেরকে ভাড়া আদায়ের জন্য চাপ, রিমান্ডে হোস্টেল সুপার

ঢাকা১৮ ডেস্ক: লকডাউনে ভাড়া দিতে না পারায় শতাধিক ছাত্রের সার্টিফিকেটসহ মূল্যবান মালামাল ফেলে দেয়ার দায়ে এক হোস্টেল সুপারকে গ্রেপ্তারের পর জিজ্ঞাসাবাদের জন্য রিমান্ডে এনেছে পুলিশ। গ্রেপ্তারকৃত ওই হোস্টেল সুপার হলেন খোরশেদ আলম। তিনি পূর্ব রাজাবাজারের একটি ছাত্রাবাসের তত্ত্বাবধায়ক ছিলেন।

শুক্রবার (০৩ জুলাই) ভিডিও কনফারেন্সে ঢাকার মহানগর হাকিম মাসুদুর রহমান এই মামলার শুনানি নেন। এরপর থেকে খোরশেদকে কোর্ট হাজতে রাখা হয়েছে।

এ বিষয়ে আদালত পুলিশের সাধারণ নিবন্ধন কর্মকর্তা এসআই শরীফ সাফায়েত হোসেন বলেন, জিজ্ঞাসাবাদের জন্য খোরশেদকে তিন দিনের হেফাজতে চায় কলাবাগান থানা পুলিশ। এ সময় তার আইনজীবী আবদুল গনী রিমান্ড আবেদন বাতিল চেয়ে বলেন, এই ঘটনাটি ‘সাজানো’। ঘটনা সম্পকে তিনি ‘কিছু জানতেন না’।

উভয় পক্ষের শুনানি নেয়ার পর বিচারক এক দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

এর আগে পূর্ব রাজাবাজারের ওই হোস্টেলের শিক্ষারর্থীরা মহামারীতে ছুটিতে গিয়েছিলেন। ফিরে এসে দেখেন তাদের সার্টিফিকেট ও মালামাল ডাস্টবিনে ফেলে দেওয়া হয়েছে।

এ ঘটনায় এক ছাত্র মামলা করেন। এ মামলার ঘটনায় শুক্রবার খোরশেদকে গ্রেপ্তার করে কলাবাগান থানা পুলিশ।

ঘটনার বিষয়ে কলাবাগান থানার ওসি পরিতোষ কুমার বলেছেন, হোস্টেলের শিক্ষার্থীদের বেশি কিছু মালামাল খোরশেদের বাসা থেকে উদ্ধার হয়েছে। ধারণা করা হচ্ছে, খোরশেদসহ আরও কেউ শিক্ষার্থীদের মালামালগুলো চুরি করে নিয়ে যায় এবং কিছু মালামাল ডাস্টবিনে ফেলে দেয়।

ঢা/আরকেএস

(Visited 3 times, 1 visits today)