শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলা নিয়ে বাড়ছে অনিশ্চয়তা

  •  
  •  
  •  
  •  

ঢাকা১৮ প্রতিবেদক: করোনা পরিস্থিতিতে দেশের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রয়েছে দীর্ঘদিন। এতে কয়েক কোটি শিক্ষার্থীর শিক্ষাজীবন ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে।

করোনা সংক্রমণ ঠেকাতে গত ১৭ মার্চ থেকে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণা করা হয়। কয়েক ধাপে বাড়িয়ে সর্বশেষ আগামী ৩ অক্টোবর পর্যন্ত করা হয়। করোনাকালে সরকার টিভি, রেডিও ও অনলাইন প্ল্যাটফর্মে শিক্ষা কার্যক্রম চালু রাখলেও আর্থসামাজিক বাস্তবতায় শিক্ষার্থীদের বড় অংশ এ সুবিধা থেকে বঞ্চিত। এমন পরিস্থিতিতে স্কুলে অর্ধবার্ষিক পরীক্ষা হয়নি। নভেম্বর-ডিসেম্বরে বার্ষিক পরীক্ষা নিয়েও সংশয় রয়েছে। তবে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় এবং শিক্ষা মন্ত্রণালয় বলছে, সময়মতো প্রতিষ্ঠান খুললে পরীক্ষা নেওয়া সম্ভব হবে। কিন্তু এতে খুব বেশি ভরসা পাচ্ছেন না সংশ্লিষ্টরা।

ফলে প্রতিষ্ঠান খুলতে না পারলে অটোপাস ছাড়া কোনো উপায় থাকবে না বলে জানিয়েছেন প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব আকরাম-আল-হোসেন। যদিও স্বাস্থ্যবিধি মেনে দেশের প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলো খুলে দেওয়ার প্রস্তুতি নিতে ৮ সেপ্টেম্বর এক নির্দেশিকা জারি করেছে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়। এ বিষয়ে সিনিয়র সচিব বলেন, ‘স্কুল খুলতে প্রস্তুতি লাগে। সেই প্রস্তুতি নিতেই বলা হয়েছে। খোলার বিষয়ে এখনো সিদ্ধান্ত হয়নি।’

গণসাক্ষরতা অভিযানের নির্বাহী পরিচালক রাশেদা কে চৌধূরী বলেন, ‘করোনা পরিস্থিতি পুরো বিশ্বের শিক্ষাব্যবস্থার ওপর চাপ ফেলেছে।   পরীক্ষা না নেওয়া গেলে অন্য অনেক দেশের মতো আগের ক্লাস পরীক্ষার মার্কিং বা গ্রেডের ফলাফলের ভিত্তিতে গড় ফলাফল ঠিক করে সনদ দেওয়া যেতে পারে।’

(Visited 450 times, 1 visits today)