শিক্ষকদের সতর্ক করলেন প্রাথমিক সচিব

যে পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে
  •  
  •  
  •  
  •  

ঢাকা১৮ ডেস্ক : ২০১৯ সাল থেকে প্যানেল শিক্ষক হিসেবে নিয়োগের দাবিতে আন্দোলন করছেন সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সহকারী শিক্ষক পদে ২০১৮ সালে অনুষ্ঠিত নিয়োগ পরীক্ষায় উত্তীর্ণ ৫৬ হাজার ৯৩৬ প্রার্থী। আন্দোলনের নামে বিভিন্ন ভাবে প্যানেল প্রত্যাশীদের কাছ থেকে চাঁদা আদায়ের অভিযোগ উঠেছে তাদের বিরুদ্ধে। জানা গেছে, আগামী অক্টোবর মাসের প্রথম সপ্তাহে সারাদেশে প্রায় ৩৬ হাজার সহকারী শিক্ষক নিয়োগের বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হবে।

এর আগেই রাজধানীতে বড় ধরণের জমায়েত করতে চায় আন্দোলনকারীরা। এজন্য তারা প্যানেল প্রত্যাশীদের কাছ থেকে একটি নির্দিষ্ট অঙ্কের টাকা তুলছেন। এ সংক্রান্ত বেশ কয়েকটি অভিযোগ প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ে জমা পড়েছে। বিষয়টি নিশ্চিত করে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব আকরাম আল হোসেন বলেন, আমাদের কাছে গত কয়েকদিন প্যানেলের নাম করে চাঁদা আদায়ের বেশ কয়েকটি অভিযোগ এসেছে। আমি চাকরি প্রত্যাশীদের অনুরোধ করব এই বিষয়ে বিভ্রান্ত না হওয়ার জন্য। প্যানেলের নাম করে কেউ আপনাদের কাছে টাকা চাইলে আপনারা আমাদের জানান। তিনি আরও বলেন, সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে প্যানেল গঠন করে নিয়োগের কোনো সুযোগ নেই। নিয়োগ প্রক্রিয়া কোনভাবেই বাতিল করা হবে না।

যথা সময়ে বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ থেকে শুরু করে লিখিত ও মৌখিক পরীক্ষার মাধ্যমে নিয়োগ প্রক্রিয়া সম্পন্ন হবে। প্যানেলের নাম করে চাঁদা আদায়ের অভিযোগ অস্বীকার করেছেন প্রাথমিক সহকারী শিক্ষক নিয়োগ-২০১৮ প্যানেল প্রত্যাশী কমিটির সাধারণ সম্পাদক মো. আবু হাসান। তিনি বলেন, এটি সম্পূর্ণ ভিত্তিহীন একটি অভিযোগ। প্যানেলের দাবিতে আমাদের সাথে যারা আন্দোলন করেন তারা স্বেচ্ছায় আসেন। তাদের কাছ থেকে কোনো প্রকার চাঁদা নেওয়া হয় না। আমাদের নাম ভাঙিয়ে অন্য কেউ এমন কাজ করলে সেই দায়ভার আমরা নিব না।

ঢা/কেএম

আগস্ট ২৮, ২০২০ ৫:১৬

(Visited 856 times, 1 visits today)