লঞ্চের কেবিনে খুন হওয়া সেই নারীর খুনি গ্রেপ্তার

লঞ্চের কেবিনে খুন হওয়া সেই নারীর খুনি গ্রেপ্তার
  •  
  •  
  •  
  •  

বরিশাল প্রতিনিধি : বরিশালগামী পারাবত-১১ লঞ্চের কেবিনে ধর্ষণের পরে খুন হওয়া জান্নাতুল ফেরদৌস লাবনীর খুনি মনিরুজ্জামানকে (৩৪) গ্রেপ্তারে সফল হয়েছে পুলিশ। খুনের পরে সে রাজধানী মিরপুরের দারুস সালাম এলাকায় আত্মগোপন করেছিল।

পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) বরিশাল জেলার একটি টিম তাকে মঙ্গলবার (১৬ সেপ্টেম্বর) রাতে সেখান থেকে গ্রেপ্তার করে। এসময় নারীকে খুনে ব্যবহৃত আলামত উদ্ধার করেছে। বুধবার তাকে বরিশালে নিয়ে আসে এবং এক সংবাদ সম্মেলন করে নারীর খুনের নেপথ্য কারণ তুলে ধরেন।

পিবিআই দাবি করেছে, প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে গ্রেপ্তার মনিরুজ্জামান স্বীকার করে, সে ২ সন্তানের জননী লাবনীর গলায় ওড়না পেঁচিয়ে হত্যা নিশ্চিত করে। এবং লঞ্চটি বরিশাল নৌ বন্দরে পৌছনো মাত্র পালিয়ে যায়। পরে বরিশাল থেকে বাসযোগে রাজধানী ঢাকায় চলে আসে।

বুধবার সকাল সোয়া ১১টায় নগরীর রুপাতলী সড়কে পিবিআই’র কার্যালয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে কর্মকর্তারা বলেন- লঞ্চের সিসিটিভির ফুটেজ দেখে আধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহার করে আসামীকে চিহ্নিত করেন। এবং পরবর্তীতে মিরপুরের দারুস সালাম এলাকায় একটি বাসা থেকে মঙ্গলবার ভোররাতে তাকে গ্রেপ্তার করেন। মনিরুজ্জামান গাজীপুরের কাপাসিয়া থানার আব্দুস শহিদের ছেলে।

উল্লেখ্য, গত সোমবার অজ্ঞাত পরিচয় হিসেবে ওই নারীর মরদেহ পারাবত-১১ লঞ্চের ৩৯১ নম্বর কেবিন থেকে উদ্ধার করে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। একদিনের মাথায় মঙ্গলবার সন্ধ্যারাতে জানা যায়, ওই নারীর নাম জান্নাতুল ফেরদৌস লাবনী এবং ঠিকানা মিরপুরের পল্লবী।

পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) বরিশাল জেলার পুলিশ সুপার মো. হুমায়ুন কবির জানান, গ্রেপ্তার মনির ওই নারীকে গোপনে বিয়ে করে, এমনটি দাবি করেছে। রোববার রাতে লঞ্চযোগে বরিশালে আসার পথে পারিবারিক বিষয়াদি নিয়ে তার সাথে লাবনীর কথার কাটাকাটি হয়। এতে একপর্যায় উত্তেজিত হয়ে সে লাবনীর গলায় ওড়না পেঁচিয়ে শ্বাসরোধ করে হত্যা করে।

পরে সোমবার সকালে লঞ্চটি বরিশাল নৌবন্দরে পৌছালে সে সেখান থেকে কৌশলে বেড়িয়ে নথুল্লাবাদ কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনালে যায়। এবং একটি সড়ক পরিবহনে ঢাকায় পৌছে মিরপুরের দারুস সালামের ওই বাসাটিতে আত্মগোপন করে বলেও জানান তিনি।

এদিকে গত সোমবার নারীর লাশটি উদ্ধারের পরে বরিশাল সদর নৌ থানা পুলিশের উপ-পরিদর্শক (এসআই) অলক চৌধুরী বাদী হয়ে কোতোয়ালি থানায় একটি হত্যা মামলা করেন।

পিবিআই সূত্র জানায়, ওই মামলায় মনিরুজ্জামানকে গ্রেপ্তার দেখিয়ে আদালতে সোপর্দ করার প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে। এবং আসামির বিরুদ্ধে আদালতে ১০ দিনের রিমান্ড আবেদন করা হবে।

ঢা/জিএমএস/আরকেএস

(Visited 166 times, 1 visits today)