রাঙ্গামাটিতে পিসিআর ল্যাব স্থাপনের আশ্বাস পবন চৌধুরীর

রাঙ্গামাটিতে পিসিআর ল্যাব স্থাপনের আশ্বাস পবন চৌধুরীর
  •  
  •  
  •  
  •  

রাঙ্গামাটি প্রতিনিধি: মরণঘাতি করোনা ভাইরাস মোকাবেলার জন্য দিয়ে রাঙ্গামাটিতে পিসিআর ল্যাব স্থাপনের আশ্বাস দিলেন বাংলাদেশ অর্থনৈতিক অঞ্চল কর্তৃপক্ষের নির্বাহী চেয়ারম্যান (সচিব) পবন চৌধুরী।

তিনি বলেন, এই পরিস্থিতিতে রাঙ্গামাটিতে পূর্ণাঙ্গ একটি ল্যাব অত্যান্ত জরুরী। পর্যাপ্ত পরিমাণ জনবল নিয়ে যদি কাজ করা হয় তবে পিসিআর ল্যাব পরিচালনা করা সম্ভব হবে। প্রয়োজনীয়তা ও গঠনপ্রণালী ব্যাখা করে ল্যাব চালানোর জন্য জনবল আছে এমন সুযোগ থাকে তাহলে সরকারের থেকে পিসিআর ল্যাব না পাওয়ার কোনো কারণ নেই।

তবে যদি ৩০ লক্ষ টাকা দিয়ে পিসিআর ল্যাব পাওয়া যায় তবে বিনিয়োগকারীদের মাধ্যমে সহায়তা করা যাবে। যদি সরকার কোনো ব্যবস্থা না নেয় এবং যদি ৭০ লক্ষ টাকা দিয়ে পিসিআর ল্যাব পাওয়া যায় তাহলে সেক্ষেত্রে পিসিআর ল্যাব স্থাপনের জন্য তিনি আশ্বাস দেন।

শুক্রবার (২৯ মে) সকালে রাঙ্গামাটি জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সম্মেলন কক্ষে ‘করোনা ভাইরাস স্বস্থ্য ব্যবস্থাপনা, ত্রাণ কার্যক্রম পরিচালনা এবং জেলার আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি তত্ত্বাবধান ও পরিবীক্ষণ সংক্রান্ত সমন্বয় সভা’য় তিনি এ কথা বলেন।

বাংলাদেশ অর্থনৈতিক অঞ্চল কর্তৃপক্ষের নির্বাহী চেয়ারম্যান( সচিব) পবন চৌধুরীর সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন, ২২৯ নং পার্বত্য আসনের সংসদ সদস্য দীপংকর তালুকদার।

আরো বক্তব্য রাখেন, রাঙ্গামাটি জেলা প্রশাসক একেএম মামুনুর রশিদ, রাঙ্গামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান বৃষকেতু চাকমা, রাঙ্গামাটি পুলিশ সুপার আলমগীর কবীর, রাঙ্গামাটি ডিজিএফআই এর অধিনায়ক জিএস কর্ণেল মো.ইমরান ইবনে এ রউফ, রাঙ্গামাটি সদর জোন কমান্ডার লে.কর্ণেল মো. রফিকুল ইলসাম, সদর উপজেলা চেয়ারম্যান শহিদুজ্জামান মহসীন( রোমান), পৌর মের আকবর হোসেন চৌধুরী, রাঙ্গামাটি সিভিল সার্জন ডা.বিপাস খীসা, রাঙ্গামাটি প্রেস ক্লাবের সভাপতিসহ বিভিন্ন সরকারি-বেসরকারি উচ্চপদস্থ কর্মকর্তা ও গণ্যমান্য ব্যক্তিরা।

সচিব পবন চৌধুরী আরো বলেন, রাঙ্গামাটিতে এখনো পর্যন্ত আইসিইউ বেড স্থাপনের জন্য সেধরনের সুযোগ নেই। তবে রাঙ্গামাটিতে ২৫০ বেডের জন্য আইসিইউ অত্যান্ত জরুরী। কিন্তু রাঙ্গামাটিতে আইসিইউ বেড স্থাপনের সেধরনের সুযোগ-সুবিধা নেই। এমনকি সুযোগ-
সুবিধা না থাকাতে রাঙ্গামাটিতে ভ্যান্টিলেটর নেওয়া সম্ভব হয়নি। কেননা সেগুলো চালানোর জন্য রাঙ্গামাটিতে পর্যাপ্ত পরিমাণে জনবল নেই।

এছাড়া রাঙ্গামাটিতে একমাত্র বাঘাইছড়ি উপজেলা করোনামুক্ত রয়েছে বলে জানান রাঙ্গামাটি জেলা প্রশাসক একেএম মামুনুর রশিদ।

তিনি বলেন, রাঙ্গামাটিতে মোট করোনায় আক্রান্ত হয়েছে ৫৮ জন। রাঙ্গামাটির একটিমাত্র উপজেলা বাঘাইছড়ি বাদে সব উপজেলাতে করোনা ছোবল দিয়েছে। সেহেতু করোনা পরিস্থিতি মোকাবেলায় সবাইকে এগিয়ে আসার জন্য তিনি আহবান জানান।

অন্যদিকে রাঙ্গামাটিতে স্বাস্থ্য বিধি মেনে গণ-পরিবহণ চলাচলে মতামত ব্যক্ত করা হয়। বাংলাদেশের গার্মেন্ট শিল্প, হস্ত শিল্প, কুটির শিল্প প্রণোদনা পাচ্ছে। অন্যদিকে পার্বত্য অঞ্চল থেকে বাংলাদেশের বিভিন্ন প্রান্তে ঘরে বসে পাচ্ছে পাহাড়ি জুমীয়াদের উৎপাদিত বিভিন্ন পণ্য।

সে হিসেবে বীজ, সারসহ ইত্যাদি ক্ষেত্রে রাঙ্গামাটির দুর্গম এলাকায় পাহাড়ি জুমীয়াদের প্রণোদনা প্রদানের আহবান জানিয়েছেন রাঙ্গামাটি ডিজিএফআই এর অধিনায়ক জিএস কর্ণেল মো.ইমরান ইবনে এ রউফ।

ঢা/এসসিএস/আরকেএস

মে ২৯, ২০২০ ৯:৩২

(Visited 14 times, 1 visits today)