মুজিব বর্ষের বাকি আর মাত্র ৫২ দিন

  •  
  •  
  •  
  •  

নিউজ ডেস্ক: ৫২ দিন পরেই ১৭ই মার্চ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের শততম জন্মবার্ষিকী পালিত হবে। এই জন্ম শত বার্ষিকীকে মুজিববর্ষ হিসেবে আখ্যায়িত করা হয়েছে।

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বেঁচে থাকলে ২০২০ সালের ১৭ মার্চ শতায়ু হতেন। ২০২১ সালের ২৬ মার্চ বাংলাদেশ তার স্বাধীনতার অর্ধ-শত বার্ষিকীতে পদার্পণ করবে। এ যেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান আর তার স্বপ্নের সোনার বাংলার আশ্চর্য এক মিলের সেতুবন্ধন।

মহান এই জাতির জনক হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালিকে জাতি হিসেবে আমরা মাত্র ৫৫ বছর ৪ মাস বাঁচতে দিয়েছি। স্বাভাবিক মৃত্যু হলে জাতির জনক শতবর্ষী হতেন না, তা কে বলতে পারে। তিনি যদি তার প্রিয় বাংলায় শত বছর বেঁচে থাকতেন তবে এই দিনটি জাতি কিভাবে পালন করত তা ভাবলেও গাঁ শিহরিত হয়ে উঠে।

হয়তো এই উপলব্ধি থেকেই বাংলাদেশের বর্তমান গনতান্ত্রিক সরকার, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে ২০২০-২০২১ বছরকে মুজিববর্ষ হিসেবে পালনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

জন্মশতবার্ষিকীর মূল অনুষ্ঠানটি হবে এ বছরের ১৭ মার্চ জাতীয় প্যারেড গ্রাউন্ডে।

ওই অনুষ্ঠানে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীসহ কয়েকজন বিশ্বনেতা উপস্থিত থাকবেন। রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উপস্থিতিতে ওই অনুষ্ঠানে বঙ্গবন্ধুর ব্যক্তি ও কর্মজীবন নিয়ে হলোগ্রাফিক উপস্থাপনা ও থিম সং পরিবেশিত করা হবে।

১৭ মার্চ মূল অনুষ্ঠানের পর থাকবে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ও আতশবাজি।

যিনি দেশটির জন্য আমৃত্যু সংগ্রাম করেছেন, দেশের মানুষের ভাগ্য উন্নয়নের জন্য জীবনের প্রতিটি মুহূর্ত আত্মনিয়োজিত ছিলেন, তাঁর প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে ঘোষিত “মুজিববর্ষ” টি বিশেষ গুরুত্বপূর্ন।

ঢা/আরকেএস/মমি 

জানুয়ারি ২৪, ২০২০ ৬:২৬

(Visited 44 times, 1 visits today)