মানিকগঞ্জে রেড জোন এলাকায় কঠোর অবস্থানে প্রশাসন

  •  
  •  
  •  
  •  

শরিফুল ইসলাম: এক অদৃশ্য ভাইরাস করোনা , যা ইতিমধ্যে পুরো বিশ্বকে বৈশ্বিক মহামারী রূপে পরিণত করেছে।

যা থেকে বাঁচতে এখনো পর্যন্ত তৈরি হয়নি কোনো প্রতিষেধক। তাই সচেতনতার পাশাপাশি স্বাস্থ্যবিধি মেনে সামাজিক দূরত্বই এই ভাইরাস থেকে বাঁচার একমাত্র উপায়।

এরি প্রেক্ষিতে করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ প্রতিরোধে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের নির্দেশে মানিগঞ্জের ৩ টি  উপজেলার ৭টি রেড জোন ঘোষিত করেছে প্রশাসন। এসব এলাকার দোকানপাট ও হাটবাজার বন্ধ রয়েছে।

রেড জোন ঘোষিত এলাকায় প্রশাসন কঠোর অবস্থানে রয়েছে। বিভিন্ন স্থানে বসানো হয়েছে
পুলিশের চেক পোষ্ট। ঘর থেকে বের হলেই পড়তে হচ্ছে পুলিশি জেরায়।

বাইরে বের হওয়ার উপযুক্ত কারণ দেখাতে না পারলে ফের আবার বাড়ি ফেরৎ পাঠাচ্ছে পুলিশ। আজ মঙ্গলবার সকালে রেড জোন ঘোষিত বিভিন্ন এলাকায় সরেজমিনে এসব চিত্র দেখা যায়।

তবে, সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠান খোলাসহ জরুরী পরিসেবায় নিয়োজিত ব্যক্তিদের চলাফেরার কারণে বিপুল সংখ্যক ব্যক্তিরা রেড জোন এলাকায় ঢুকে পড়ছে।

এছাড়া ব্যাংকসহ আর্থিক প্রতিষ্ঠান খোলা থাকার কারণে সেবা গ্রহীতারাও ঢুকে পড়ছে।

মানিকগঞ্জ শহরের রফিক চত্তরের সামনের চেক পোষ্টে দায়িত্বরত মানিকগঞ্জ সদর থানা পুলিশের এক উপ-পরিদর্শক বলেন, করোনা সংক্রমণ এড়াতে জেলার অধিক ঝুঁকিপূর্ণ সাতটি এলাকা রেড জোন ঘোষণা করেন প্রশাসন। তবু মানুষ কারণে অকারণে নানা অজুহাতে বাইরে চলাচলের চেষ্টা করছে। অকারণে বাইরে বের হওয়া মানুষগুলোকে বুঝিয়ে আবার বাড়ি ফেরৎ পাঠানো হচ্ছে বলে জানান তিনি।

করোনা সংক্রমণে অধিক  ঝুকিপূর্ণ বিবেচনায় মানিকগঞ্জ সদর, সাটুরিয়া ও সিংগাইর উপজেলায় ৭টি এলাকাকে রেডজোন  ঘোষণাপূর্বক একটি আদেশ জারি করা হয়েছে।

সোমবার রাত ৮ টা থেকে থেকে ৪  জুলাই পর্যন্ত এই আদেশ বলবৎ থাকবে জানিয়ে গণবিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেন মানিকগঞ্জের জেলা প্রশাসক এস এম ফেরদৌস।

ঢা/মমি

জুন ১৬, ২০২০ ৩:৩৭

(Visited 50 times, 1 visits today)