মানবতার সেবায় ‘গিফট ফর গুড’

  •  
  •  
  •  
  •  

নিজস্ব প্রতিবেদক: বেদে সম্প্রদায়, যারা সাপের খেলা দেখিয়ে জীবিকা নির্বাহ করেন। তাদের কথা শুনলেই আমাদের ভ্রু কুঁচকে যায় এমন কি নজরটাও পাল্টে যায়। এই মানুষগুলোর গল্প কেউ জানতেই চায় না। করোনা সংকটকালীন সময়ে তাই শ্রেণিপেশার উর্ধ্বে গিয়ে বেদে সম্প্রদায়ের প্রতি সহায়তার হাত বাড়িয়েছে গিফট ফর গুড। বরাবরের মতো এবার ও গিফট ফর গুড নিয়েছে ব্যতিক্রমধর্মী উদ্যোগ।

করোনা ভাইরাস (কোভিড-১৯) সংক্রমণের ফলে কর্মহীন হয়ে পরাদের সহযোগিতায় দেশব্যাপী কাজ করে চলেছে সামাজিক সংগঠন ‘গিফট ফর গুড’। তারই অংশ হিসেবে রবিবার (১৭ মে) ‘গিফট ফর গুড’ এর স্বেচ্ছাসেবকরা গিয়েছিলেন কেরানীগঞ্জ ও তার পার্শবর্তী এলাকায়। সেখানে বসবাসকারী ৭৫ জন বেদের পাশে গিয়ে দাঁড়িয়েছে ‘গিফট ফর গুড’। তাদের কাছে পৌঁছে দিয়েছে সাত দিনের বাজার। এতে রমজানের খাদ্য সামগ্রী ছাড়াও ছিল চাল, ডাল, তেল, আটা, ছোলা, মুড়ি, খেজুর।

এখন পর্যন্ত পাঁচ হাজারেরও অধিক পরিবারকে খাদ্য ও ঔষধ সহায়তা দিয়েছে ‘গিফট ফর গুড’। যাদের মধ্যে রয়েছে বনানী, ধামরাই, দেওয়ানগঞ্জের, ৬০০ জন তৃতীয় লিঙ্গের মানুষ, ২০০ জন বিভিন্ন ভাবে দক্ষ মানুষ, মিরপুর এবং মংলায় ১৫০ জন সেক্স ওয়ার্কার, কালাচাঁদপুরের গারো সম্প্রদায়, নাটোরের সাঁওতাল জনগোষ্ঠী, মুন্সিগঞ্জের বেদে সম্প্রদায়সহ সমগ্র ঢাকা শহরের প্রায় দুই হাজার বস্তিবাসী।

এর পাশাপাশি তাদের বিনামূল্যে হ্যান্ড স্যানিটাইজার ও মাস্ক বিতরণ কর্মসূচিও চলতে থাকে সমানভাবে। শুধু রাজধানী ঢাকা বা এর আশেপাশেই নয়, প্রত্যন্ত অঞ্চলেও গিফট ফর গুড তাঁদের কার্যক্রম চালিয়ে গেছেন। ভোলা, মহেশখালী, বরিশালের চারশ জেলে পরিবারকে ত্রাণ সহায়তা দিয়েছেন তারা।

এমনিভাবে সমাজ যেই মানুষগুলোর কথা আজ ভুলে গেছে, তাঁদের পাশে এসে দাঁড়িয়েছে গিফট ফর গুড। তবে এই কাজগুলো করা তাঁদের জন্য কখনোই খুব সহজ ছিল না। কাজের মাঝে নানা বাঁধা, বিড়ম্বনার মুখোমুখি হতে হয়েছে তাঁদের। ত্রাণ বিতরণ করতে গিয়ে সংগঠনের কর্মীরা স্থানীয় প্রশাসনের বাঁধাও পেয়েছেন। কখনো সমাজের মানুষের অসহযোগিতায় কঠিনতর হয়েছে এই পথ। তবে তাঁরা থেমে থাকেননি। কখনো একা, কখনোবা অন্য সংগঠনের সাথে একত্রিত হয়ে কাজ করেছেন এইসব অবহেলিত জনগোষ্ঠীর জন্য।

তাদের মাঝে শুধু ত্রাণ সহায়তাই পৌঁছে দেননি, তাদেরকে সচেতন করেছেন, নিরাপদে থাকার উপায় বলে দিয়েছেন, জানিয়েছেন সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করার কথা।

‘গিফট ফর গুড’র যাত্রা শুরু হয় ২০১৯ সালে। মানুষের ফেলে দেয়া সামগ্রী, ব্যবহার্য জিনিস থেকে নতুন কিছু তৈরি করে সমাজের ছিন্নমূল মানুষদের মাঝে ছড়িয়ে দেয়ার লক্ষ্য নিয়েই এই উদ্যোগের শুরু। সাথে জরুরি প্রয়োজনে মানুষকে কীভাবে সাহায্য করা যায় সেটি নিয়েও কাজ করে আসছে ‘গিফট ফর গুড’র একঝাঁক তরুণ কর্মী।

তবে ‘গিফট ফর গুড’র পেছনের গল্পটি আরো মজার। যে গল্পের শুরু ২০১৫ সালে। সমাজের বিভিন্ন কমিউনিটির শিশুদের মাঝে শিক্ষার আলো ছড়িয়ে দেয়ার জন্য যাত্রা শুরু করে ‘আলোকিত শিশু’। ধীরে ধীরে সংগঠনটির কাজের পরিধি আরো বিস্তৃত হয়।

সমাজের যে মানুষগুলো সবথেকে বেশি উপেক্ষিত আর অবহেলিত হয়ে আসছে, তাদের নিয়ে কাজ করতে থাকে ‘আলোকিত শিশু’। তারা সবসময় কাজ করেছেন বেদে, তৃতীয় লিঙ্গ, বিভিন্ন ভাবে দক্ষ জনগোষ্ঠী, জেলে, উপজাতি,ভিক্ষুক বস্তিবাসীসহ সর্বস্ব হারনো নিরুপায় মানুষদের নিয়ে।

এবছরও করোনা নিয়ন্ত্রণে সরকারি ছুটি ঘোষণা করা হলে বিপাকে পড়ে যায় সমাজের নিম্ন আয়ের খেটে খাওয়া জনগোষ্ঠী। এমন দুর্দিনে এই মানুষগুলোর পাশে এসে দাঁড়ায় গিফট ফর গুড।

ঢা/এস/আরকেএস

(Visited 8 times, 1 visits today)