মহাষ্টমী-কুমারী পূজা আজ

নিউজ ডেস্ক: বাঙালি হিন্দু সম্প্রদায়ের প্রধান ধর্মীয় উৎসব শারদীয় দুর্গাপূজার মহাষ্টমী আজ।

শারদীয় দুর্গোৎসবের দ্বিতীয় দিন গতকাল শনিবার মহাসপ্তমীতে ভক্ত, পূজারি ও দর্শনার্থীর উপচেপড়া ভিড় ছিল সারাদেশের ৩১ হাজার ৩৯৮টি পূজামণ্ডপে। মণ্ডপে মণ্ডপে এদিন ছড়িয়ে পড়ে উৎসবের বারতা।

তৃতীয় দিন আজ রোববার (৬ অক্টোবর) মহাষ্টমী ও সন্ধিপূজা। রামকৃষ্ণ মিশনসহ বেশ কয়েকটি পূজামণ্ডপে একই সঙ্গে কুমারী পূজার আয়োজন করা হয়েছে।

রামকৃষ্ণ মিশনে অষ্টমী পূজা শুরু হয়েছে সকাল সাড়ে ৯ টায়। এরই মধ্যে সেখানে বিভিন্ন জায়গা থেকে ভক্ত অনুসারীদের ঢল চোখে পড়ার মতো।

কুমারী পূজা অনুষ্ঠিত হয় রামকৃষ্ণ মিশন মঠের মন্দিরে। মহাষ্টমীর দিন এখানে জাঁকজমকভাবে কুমারী পূজার আয়োজন করা হয়।

ঢাকার বাইরে নারায়ণগঞ্জ, হবিগঞ্জ, সিলেট, চট্টগ্রাম, কুমিল্লা, বরিশাল ও যশোরে মঠের বিভিন্ন শাখায় কুমারী পূজা অনুষ্ঠিত হয়ে থাকে।

স্বামী বিবেকানন্দ মাতৃজাতির মর্যাদা প্রতিষ্ঠায় ১৯০১ সালে শ্রীরামকৃষ্ণ ও সারদাদেবীর অনুমতিক্রমে কুমারী পূজার প্রচলন করেন।

কুমারী পূজা এক বিশেষ ধরনের পূজা। এই পূজায় এক কুমারীকে দেবীর আসনে বসিয়ে মাতৃরূপে পূজা-অর্চনা করা হয়। শঙ্খের ধ্বনি, কাঁসর ঘণ্টা, ঢাকের বাদ্য ও উলুধ্বনি দিয়ে কুমারী মাকে পুষ্পমাল্য পরিয়ে দেওয়া হয়।

কুমারী দেবী ভগবতীর অতি সাত্বিক রূপ। কুমারী আদ্যাশক্তি মহামায়ার প্রতীক। দেবী দুর্গার আরেক নাম ‘কুমারী’।

মূলত নারীকে যথাযথ মর্যাদায় প্রতিষ্ঠিত করতেই কুমারী পূজার আয়োজন করা হয়। মাটির প্রতিমায় যে দেবীর পূজা করা হয়, তারই বাস্তবরূপ কুমারী পূজা।

ঢাকার রামকৃষ্ণ মিশনের প্রধান মহারাজ এ পূজা প্রসঙ্গে বলেন, পুরাণের বর্ণনা অনুযায়ী দেবতাদের স্তবে প্রসন্ন হয়ে দেবী চণ্ডিকা কুমারী কন্যারূপে দেবতাদের সামনে দেখা দিয়েছিলেন।

দেবীপুরাণে এ বিষয়ে বিস্তারিত উল্লেখ আছে। তবে অনেকে মনে করেন যে, দুর্গাপূজায় কুমারী পূজা সংযুক্ত হয়েছে তান্ত্রিক সাধনামতে। শ্বেতাশ্বতর উপনিষদেও কুমারীর কথা উল্লেখ আছে।

এ থেকে অনুমান করা যায়, দেবীর কুমারী নাম অনেক পুরোনো। এই নাম যেমন পুরোনো, তার আরাধনা ও পূজার রীতিনীতিও তেমনি প্রাচীন।

দেবীজ্ঞানে যে কোনো কুমারীই পূজনীয় তবে সাধারণত ব্রাহ্মণ কুমারী কন্যার পূজা সর্বত্র প্রচলিত। ব্রাহ্মণ ছাড়াও অন্য জাতির কন্যাকেও কুমারীরূপে পূজা করতে বাধা নেই। কিন্তু অবশ্যই কুমারীকে ঋতুমতী হওয়া চলবে না।

তন্ত্রঅনুসারে এক থেকে ষোল বছর পর্যন্ত ব্রাহ্মণ বালিকাদের কুমারী পূজার জন্য নির্বাচিত করা হয়ে থাকে। প্রতি বছরের মতো এবারও রামকৃষ্ণ মিশনে মহাষ্টমীর দিন সকালে কুমারী পূজায় বর্ণাঢ্য আয়োজন থাকবে।

এবারের কুমারী পূজায় সাড়ে চার বছরের প্রশংসা বন্দ্যোপাধ্যায়কে স্নান করিয়ে নতুন কাপড় পরানো হবে।

ফুলের মালা, চন্দন, নানা অলংকার, প্রসাধন ও উপাচারে নিপুণ সাজে সাজানো হবে। এরপর তাকে নিয়ে আসা হবে পূজা মণ্ডপের নির্দিষ্ট আসনে। চলবে পূজার যথাবিহিত আয়োজন।

ঢাকার রামকৃষ্ণ মিশনের এ পূজা খুবই আকর্ষণীয়। কুমারী পূজা দেখতে প্রতি বছর মহাষ্টমীর দিন সেখানে প্রচুর ভক্ত ও সাধারণ দর্শনার্থীর আগমন ঘটে।

পাঁচ দিনের এই উৎসব ঘিরে সারাদেশে এখন আনন্দমুখর পরিবেশ।

কেন্দ্রীয় পূজামণ্ডপ হিসেবে পরিচিত ঢাকেশ্বরী মন্দির মেলাঙ্গনে মহানগর সর্বজনীন পূজা কমিটির মণ্ডপে গতকাল মহাসপ্তমী পূজার আনুষ্ঠানিকতা ছাড়াও দুস্থদের মধ্যে বস্ত্র বিতরণ করা হয়েছে।

আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের এ সময় উপস্থিত ছিলেন। রোববার মহাষ্টমীর দিনে সেখানে ৩৫ হাজার দর্শনার্থী-ভক্তের মধ্যে মহাপ্রসাদ বিতরণ করা হবে।

ঢা/তাশা

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here

***ঢাকা১৮.কম এ প্রকাশিত কোনও সংবাদ, কলাম, তথ্য, ছবি, কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ। অনুমতি ছাড়া ব্যবহার করলে কর্তৃপক্ষ আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করবে। ( Unauthorized use of news, image, information, etc published by Dhaka18.com is punishable by copyright law. Appropriate legal steps will be taken by the management against any person or body that infringes those laws. )