ভোলা নয়, আপত্তির মুখে নারায়ণগঞ্জে দাফন হল খুনি মাজেদের

অবশেষে ফাসিতে ঝুলিয়ে মৃত্যুদন্ড কার্যকর হল খুনী মাজেদের

নিউজ ডেস্ক: বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের খুনি আব্দুল মাজেদকে নানা আপত্তির মুখে খুব গোপনেই ভোলার পরিবর্তে রোববার ভোরে শ্বশুরবাড়ি নারায়ণগঞ্জে দাফন করা হয়েছে।

সোনারগাঁও উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা সাইদুল ইসলামের ভাষ্যমতে জানা যায়, নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁওয়ের সম্ভুপুরা ইউনিয়নের হোসেনপুর গ্রাম খুনি মাজেদের শ্বশুরবাড়ি। সেখানেই মাজেদকে স্কুলের পাশের একটি কবরস্থানে লোকচক্ষুর আড়ালে দাফন সম্পন্ন করা হয়।

জানা যায়, দাফন প্রক্রিয়া সম্পূর্ণ কেন্দ্রীয়ভাবে করা হয়েছে। বিষয়টি ভোলার বিতর্কের মত যেন না হয় তাই স্থানীয় প্রশাসনকেও জানানো হয়নি। সকালে উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা বিভিন্ন জনের কাছ থেকে জানতে জানতে পারেন রাত তিনটায় পর মাজেদের মরদেহ অ্যাম্বুলেন্সে করে এনে এখানেই দাফন করা হয়েছে।

এরআগে গত শুক্রবার (১১ এপ্রিল) দিবাগত রাত ১২টা ১ মিনিটে আব্দুল মাজেদের ফাঁসি কার্যকর হয় কেরাণীগঞ্জে অবস্থিত কেন্দ্রীয় কারাগারে। এটিই এই কারাগারে প্রথম ফাঁসির ঘটনা।

শনিবার বিকেলে বঙ্গবন্ধুর আত্মস্বীকৃত খুনি ক্যাপ্টেন (বরখাস্ত) মাজেদের লাশ ভোলার মাটিতে না পাঠানোর দাবি জানান ভোলা-৩ (লালমোহন-তজুমদ্দিন) আসনের সংসদ সদস্য নুরুন্নবী চৌধুরী শাওন।এতে লাশ দাফনে সৃষ্টি হয় জটিলতা সৃষ্টি হওয়ায় লাশ দাফনের সিদ্ধান্ত হয় নারায়ণগঞ্জে।

জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের হত্যা মামলায় আব্দুল মাজেদের ফাঁসি কার্যকরের মধ্য দিয়ে মোট ৬ জনের ফাঁসি কার্যকর হলো।

এরআগে ২০১০ সালের ২৭ জানুয়ারি দিবাগত রাতে এ কে এম মহিউদ্দিন আহমেদ, বজলুল হুদা, সৈয়দ ফারুক রহমান, সুলতান শাহরিয়ার রশীদ খান ও মহিউদ্দিন আহমেদের মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করা হয়। রায় কার্যকরের আগেই ২০০১ সালের জুনে জিম্বাবুয়েতে মারা যান আজিজ পাশা।

এবার করোনা সঙ্কট দূর হলে পলাতক খন্দকার আব্দুর রশিদ, নূর চৌধুরী, রাশেদ চৌধুরী, শরিফুল হক ডালিম ও মোসলেহ উদ্দিনকে দেশে ফিরিয়ে আনার প্রক্রিয়া শুরু করবে আওয়ামী লীগ সরকার, এমনটিই জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের একাধিক শীর্ষনেতা।

ঢা/এফএইচপি

(Visited 1 times, 1 visits today)