বোকা কাকের বাসায় ডিম পাড়া ‘বাউল’ পাখির গপ্পো

ভিন্ন ডেস্ক: অত্যন্ত কৌশলে বুদ্ধি খাটিয়ে ডিম পাড়া পাখিটির নাম কোকিল। এরা নিজে বাসা বাঁধে না। খোঁজে অন্য পাখির তৈরি বাসা। আর খোঁজে সুযোগ। সুযোগ পেলেই ডিম ছাড়ে কাক, ছাতারে কিংবা হাঁড়িচাচার বাসায়। খুব সুবিধা না হলে শেষমেষ ভরসা কসাই ও বুলবুলির বাসা। তবু বাসা হতে হবে অন্যের।

আর কোনোমতে যদি অন্যের বাসা না মেলানো যায় তাহলে মাটিতে পড়েই নষ্ট হয় ডিম। বসন্ত কালে এরা সঙ্গীর খোঁজে ডাকে বেশি। ডিম দেওয়ার আগে পুরুষ পাখিটি কুউউ কুউউ ডাক ছেড়ে বাসার মালিককে ক্ষেপিয়ে তোলে। ওরাও কোকিলের মতলব বুঝে ধাওয়া করে। আর সেই সুযোগে মেয়ে পাখিটি গিয়ে ডিম পেড়ে আসে।

কোকিলেরা ডিম পাড়ে ৪-৬টা। তবে এক বাসায় দুটির বেশি নয়। ডিম পাড়ার আগে ওই বাসার ডিম দুটি অবশ্যই ফেলে দেয়। একাধিক বাসায় দুটি করে ডিম পাড়ে সুযোগ বুঝে। সময় নেয় দুই দিন। এই সময়ের মধ্যে বাসা ম্যানেজ না হলে ডিম ছাড়ে মাটিতে। বোকার হদ্দ কাক, ছাতারে ঠিকই কোকিলের ডিমে তা দেয়, বাচ্চা ফোটায়, লালন-পালন করে।

বোকা কাক খাওয়াচ্ছে কোকিলের বাচ্চাকোকিলের ডিম ফুটে বাচ্চা হতে সময় লাগে ৩শ ঘণ্টার মতো। কাক, ছাতারের সময় লাগে আরও বেশি। পুরুষ কোকিল কুচকুচে কালো হয়। তারউপরে হালকা নীলাভ আভা। চোখের রং মরিচের মতো লাল। মেয়ে কোকিল বাদামি। তাতে হালকা কালচে আভা ও সাদা ছিট-ফোট থাকে। ইংরেজি নাম Asian koel। বৈজ্ঞানিক নাম Eudynamys scolopacea।

কোলিলের খাদ্যতালিকায় আছে নানান রকম ফল, কিছু নির্দিষ্ট পোকা ও ডিম। এদের সুরেলা কণ্ঠের জন্য বলা হয় গায়ক পাখি। তাল-লয়-ছন্দে ডাকতে পারে পুরুষ কোকিলই।

 

চির বাউল স্বভাবের এই পাখিটি বাংলাদেশে ভালোই আছে। কোকিলের মধুর ডাক ঘিরে রয়েছে অনেক কবিতা-গান। এদের বাউল স্বভাবের জন্য ও ফাঁকিবাজির কারণে মানুষ ওদের ‘বসন্তের কোকিল’ নামে উপমা দিয়েছে।

ঢা/এফএইচপি

(Visited 3 times, 1 visits today)