বাংলাদেশের ফ্যাশন ইন্ডাষ্ট্রিতে ‘ভার্চুয়াল ফটোগ্রাফি’

বাংলাদেশের ফ্যাশন ইন্ডাষ্ট্রিতে ‘ভার্চুয়াল ফটোগ্রাফি’

এ বি ওয়ালিউদ্দিন আহমেদ : প্রকৃতপক্ষে ‘ভার্চুয়াল শ্যুট’ ব্যাপারটি বৃহৎ কোনও ব্র্যান্ডকে তার স্বরুপ প্রকাশের অত্যাবশকীয় অনুসঙ্গ বলতে আমি নারাজ। তবে পরিবর্তিত এই করোনাকালের পরিস্থিতিতে সবাই কিন্ত এখন মনোযোগ দিচ্ছে এই অনুসঙ্গটিকে, একটু জোর দিয়ে বলাই যায়, বেশ গুরুত্ব পাচ্ছে প্রকাশের প্রয়োজনীয় মাধ্যম হিসাবেও।

কিন্তু সংকটময় এই সময়টি কেটে গেলে এই মাধ্যমটি প্রকৃতপক্ষে তার কার্যকারিতা হারাবে কিনা, তা ভবিষ্যতে সময়ের কাছ থেকে দেখতে হবে! হতে পারে ‘ভার্চুয়াল শ্যুট’ অথবা ফটোগ্রাফি এখন একটি বিকল্প সমাধান কিন্তু কখনই এটা পূর্ণাঙ্গ মাত্রা ও সঠিক ষ্ট্যান্ডার্ডের ‘শ্যুট’ নামক বস্তুটি দিতে পারে না, যেটা আমাদের সবার মন আসলভাবে চায়!

একটি ‘বাস্তবিক শ্যুট’ এবং একটি ‘ভার্চুয়াল শ্যুট’ যেকোনো স্কেলেই গুণগত মানের একক ও পরিমাপের মাত্রাটি সমমানের হতে পারে না। দুটো মাধ্যম আমার কাছে বিগ স্কেলে ভেরিয়েবল। সে হিসাবে সঙ্কটের এই সময়কে যদি নির্দিষ্ট ধরি, তাহলে এই ‘ভার্চুয়াল শ্যুট’ বিষয়টি তার পরের নিজ অবস্থানে থাকার ব্যাপারটি আবার সেই সময়ের কাছ থেকেই জানতে হবে।

ফ্যাশন ডিজাইনার এ বি ওয়ালিউদ্দিন আহমেদ।
ফ্যাশন ডিজাইনার এ বি ওয়ালিউদ্দিন আহমেদ।

তো যাই হোক, সময়-তো সুন্দর কাটছে বটে ওটাকে ব্যবহার করে, এটাও কি কম পাওয়া! আমার দেখা গুণী ফ্যাশনিষ্ট আজরা মাহমুদ ‘ভার্চুয়াল শ্যুট’ এর কর্মযজ্ঞতার প্রকাশের মাধ্যমে যে উদ্দ্যোগ নিয়েছেন তা নিঃসন্দেহে প্রশংসনীয়। ফ্যাশন ইন্ডাস্ট্রিতে কাজ একেবারেই নেই এই ক্রান্তিকালের সময়টিতে, এই ‘ভার্চুয়াল শ্যুট’ এর মাধ্যমে সবার সময়টা আরও একটু সুন্দরতর কোয়ালিটি টাইম লেভেলে যাবে বলে আমি বিশ্বাস করতে চাই।

সাথে একটি প্রস্তাবনা- এই ভার্সনের ফটোগ্রাফির মেকানিজমটিতে মেকাপ আর্টিষ্টদের কিভাবে সনাতন কিংবা মূলধারার অনুসরণে যোগ করা যায় কি-না? এই বিষয়টা প্রশ্ন আকারে আমার চিন্তায় এসেছে; কারণ, ‘ভার্চুয়াল শ্যুট’ এর মডেলরা সবাই যার যার মেকাপ নিজেরাই করছে। যাই হোক, মতামত কিংবা পর্যবেক্ষণের শব্দমালা আর না বাড়িয়ে চলুন তাহলে দেখি এদেশে ফ্যাশন ইন্ডাস্ট্রিতে কাজ করছেন তারা এই ‘ভার্চুয়াল শ্যুট’অথবা ফটোগ্রাফি ভার্সনটি নিয়ে কি বলছেন অথবা চিন্তা করছেন!

ফটোগ্রাফার রিয়াদ আশরাফ।
ফটোগ্রাফার রিয়াদ আশরাফ।

ফটোগ্রাফার রিয়াদ আশরাফ বলেন, মহামারি করোনায় আপাতত ‘ভার্চুয়াল ফটোগ্রাফি’তে কাজ করছে সবাই। তবে এটাতে বড় বাজেট বা বড় শ্যুটের কোন কাজ করা সম্ভব হবে বলে মনে হয় না। যদিও ভার্চুয়ালে পণ্যের কোয়ালিটি তেমন থাকে না। এটা সাধারণ একটা স্ক্রিনশট, আর কিছুই না। তবে আপাতকালীন কিছু কাজ হচ্ছে ভার্চুয়ালে, সব কাজ-তো করা সম্ভব না।

কোরিওগ্রাফার আশিকুর রাহমান।
কোরিওগ্রাফার আশিকুর রাহমান।

কোরিওগ্রাফার আশিকুর রাহমান পনি বলেন, ‘ভার্চুয়াল ফটোগ্রাফি’তে কখনো কোন কর্মশিয়াল কাজ হবে না। কারণ, একজন ক্লায়েন্ট যেভাবে কাপড়ের ডিটেলস চাই, সেটা ভার্চুয়ালে করা সম্ভব না। এটা সাধারণত কর্পোরেট, পার্সোনাল বা ছোটখাটো কাজ করতে পারি ভার্চুয়াল ফটোগ্রাফিতে। বিশ্বের ফ্যাশন ডিজাইনাররা এটাকে ‘ফানি’ হিসেবে নিয়েছে। তারা প্রফেসনাল হিসেবে কেউ নেয়নি। এটা শুধু সময় কাটানোর জন্য, আর কিছু না।

মডেল মারিয়া কিসপোটা।
মডেল মারিয়া কিসপোটা।

মডেল মারিয়া কিসপোটা বলেন, এ সময়ে ‘ভার্চুয়াল ফটোগ্রাফি’ খুবই কঠিন। সাধারণত এর পক্ষে আমি না, আমরা কখনোই এটা করি না। আমরা যখন ওয়ার্ল্ডে কাজ করি তখন অনেকগুলো বিষয় থাকে, অনেক পার্ট থাকে, ক্যাটাগরি থাকে এবং প্রত্যেক পার্টে আলাদা আলাদা কর্মী থাকে। তারপরও একটা থার্ড আইয়ের প্রয়োজন হয়। সেই মানুষটা দেখে বুঝতে পারতো পার্টটা ঠিক আছে, কিংবা ঠিক নাই। সেটা বুঝার নলেজও থাকতে হবে সেই মানুষটার। ভার্চুয়ালে সেটা না থাকলে, নতুন করে শিখে করা খুবই কঠিন। তবে ফেসবুক পোস্ট বা স্যোশাল মিডিয়ার ছোটখাটো কাজগুলো করতে পারে, তাছাড়া বড় ক্যাম্পেইনগুলো ‘ভার্চুয়াল ফটোগ্রাফি’তে করা সম্ভব না।

মডেল সামিরা খান মাহি।
মডেল সামিরা খান মাহি।

মডেল সামিরা খান মাহি বলেন, আমার মতে ‘ভার্চুয়াল শ্যুট’ একটা স্ক্রিনশট। এখানে কোরিওগ্রাফার বা মেকআপ আর্টিস্টের কোন কাজ নেই। ‘ভার্চুয়াল শ্যুট’ কোরিওগ্রাফারের কাজ এমন হয়েছে গেছে, গুগল থেকে একটি থিম নিয়ে বললো- তুমি এটা করো, এটাই ‘ভার্চুয়াল ফটোগ্রাফি’।

ডিজাইনার ও কোরিওগ্রাফার জাবিন ইকবাল।
ডিজাইনার ও কোরিওগ্রাফার জাবিন ইকবাল।

ডিজাইনার ও কোরিওগ্রাফার জাবিন ইকবাল বলেন, বড় শ্যুট সামনে থেকে দ্রুত যেভাবে পরিবর্তন করা যায় ভার্চুয়ালে তা করা সম্ভব হয় না। মূলত বড় ক্যাম্পেইনের জন্য ‘ভার্চুয়াল ফটোগ্রাফি’ না, এটা ফেসবুক পোস্ট বা ছোট কাজের জন্য। দেশের যে অবস্থা ‘ভার্চুয়াল ফটোগ্রাফি’ দিয়ে সময়টা পার করা ছাড়া আর কিছুই না।

কোরিওগ্রাফার তানজিল জনি।
কোরিওগ্রাফার তানজিল জনি।

কোরিওগ্রাফার তানজিল জনি বলেন, করোনা মহামারিতে ‘ভার্চুয়াল ফটোগ্রাফি’ খুবই ঝুকিপূর্ণ। কারণ, যে ড্রেস মডেলকে পাঠানো হয়েছে, সেটা করোনামুক্ত কিনা কেউ জানেন না। আমার মনে হচ্ছে, ভার্চুয়ালে ঝুকি বাড়ছে। তাছাড়া, ‘ভার্চুয়াল ফটোগ্রাফি’ দেখতে স্ক্রিনশটের মতো, তেমন ভাল হয় না। তবে করোনা সংকটকালে ছোট কাজের জন্য ‘ভার্চুয়াল ফটোগ্রাফি’।

ফ্যাশন ডিজাইনার ফারাহ দিবা।
ফ্যাশন ডিজাইনার ফারাহ দিবা।

ফ্যাশন ডিজাইনার ফারাহ দিবা বলেন, ফ্যা শন জগতে ভার্চুয়াল ফটোশ্যুট বর্তমান পরিস্থিতিতে একটি বহুল ব্যাবহৃত শব্দ। সামাজিক দুরত্ত্ব বজায় রেখে ডিজিটাল পদ্ধতিতে শুধুমাত্র ডিভাইস ব্যবহার করে ফটোশ্যুটের একটি পদ্ধতি হলেও এটি ক্ষেএ বিশেষে প্রয়োগের উপযোগী। আমার মতে, কোন ব্রান্ড বা নির্ধারিত পণ্যের মার্কেটিং এর উদ্দেশ্যেপ এ পদ্ধতিতে ফটোশ্যুট প্রকৃত উদ্দেশ্য। হাসিলে সক্ষম হবে না। একটি পণ্য ফটোশ্যুটের উদ্দেশ্যশ থাকে মডেল দ্বারা, ক্রেতার কাছে এটির গ্রহণযোগ্যকতা তুলে ধরা। অর্থাৎ যদি এটি পোশাক হয়, তবে পোশাকটি পরলে কেমন দেখাবে এবং সেই সাথে মেকআপ, স্টাইলিং, ব্যা কগ্রাউন্ড এবং কোরিওগ্রাফির মাধ্যযমে পণ্যটির সুন্দর্য বৃদ্ধি করা হয়।

অর্থাৎ একটি সামগ্রিক প্রসেস এবং এর মাধ্য্মে ব্রান্ড বা ফটোশ্যুট অর্গানাইজারকে চিহ্নিতও করা যায়, যা প্রকৃত মার্কেটিং পদ্ধতি। যেমন আমাদের দেশে আড়ং, অরন্যস ক্রাফট বা শাহরুখ আমিন, বিপ্লব সাহার কাজ দেখলেই সহজেই আমরা ধারণা করতে পারি। ভার্চুয়াল পদ্ধতিতে এই ডিফারেন্স রাখা খুব একটা সহজ মনে হয় না। তাছাড়া শ্যুটের সাথে সংশ্লিষ্ট মেকাপ আর্টিস্ট, কোরিওগ্রাফার, স্টাইলিস্টের যে ভুমিকা তা অক্ষুন্ন থাকে না এবং স্বাধীনতাও থাকে না। এক্ষেএে আমাদের মডেলের ম্যা নেজমেন্ট এবং সম্ভাবনার উপর বেশি নির্ভরশীল হতে হয়। আমি ইন্টারন্যাছশনাল বা আমাদের দেশে যে কয়টি ভার্চুয়াল শ্যুট দেখেছি সব গুলোর পোশাক, মেকআপ, স্টাইলিং বা পোজের ধরণটা কাছাকাছি। এ পদ্ধতি কোন ব্যক্তি বিশেষ বা পর্টফোলিও শ্যুটের জন্যণ উপযুক্ত হলেও বাণিজ্যি ক পণ্যের জন্যম উপযুক্ত নয় বলে আমি মনে করি।

ফ্যাশন ডিজাইনার ও কোড নাহরিন চৌধুরী।
ফ্যাশন ডিজাইনার ও কোড নাহরিন চৌধুরী।

ফ্যাশন ডিজাইনার ও কোড নাহরিন চৌধুরী বলেন, আসলে ভার্চুয়াল শ্যুট বড় ব্র্যান্ডের জন্য নয়। করোনার সংকটের কারণে সবাই এটাতে মনোযোগ দিচ্ছেন। ‘ভার্চুয়াল ফটোগ্রাফি’ একটি বিকল্প সমাধান। তবে সঙ্কটের পরে এটি মূলত কাজ করবে না। তবে এটি কখনই আমাদের সঠিকভাবে অঙ্কুর দেয় না, যা আমরা মূলত চাই। তবে শারীরিক ফটোশ্যুট এবং ভার্চুয়াল শ্যুট এক হতে পারে না। সুতরাং, আমি বুঝাতে চাইছি এই সংকটের জন্য এটি কাজ করবে, তবে তার পরে নয়।

ফ্যাশন ডিজাইনার ফারাহ দিবা।
ফ্যাশন ডিজাইনার ফারাহ দিবা।

মিস বাংলাদেশ মডেল মিয়াম বলেন, ‘ভার্চুয়াল ফটোগ্রাফি’ হচ্ছে শুধুমাত্র স্ক্রিনশট, আর কিছুই না। করোনাকালের সময় পার করার সুন্দর এক মাধ্যম ‘ভার্চুয়াল ফটোগ্রাফি’।

লেখক পরিচিতি : ফ্যাশন ডিজাইনার এবং গ্রুমিং ইন্ডাস্ট্রির দেশে ও প্রবাসে মেধা, আধুনিকতার অনন্য সংমিশ্রণের অসাধারণ প্রকাশে সার্থকময় এবং প্রশংসামূলক স্বীকৃতিতে স্বনামধন্য হয়েছেন তরুণ বয়সেই।

ঢা/কেএম

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here

***ঢাকা১৮.কম এ প্রকাশিত কোনও সংবাদ, কলাম, তথ্য, ছবি, কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ। অনুমতি ছাড়া ব্যবহার করলে কর্তৃপক্ষ আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করবে। ( Unauthorized use of news, image, information, etc published by Dhaka18.com is punishable by copyright law. Appropriate legal steps will be taken by the management against any person or body that infringes those laws. )