ফিল্মি কায়দায় অপহরণ, ১৮ দিন আটকে রেখে টানা ধর্ষণ

ফিল্মি কায়দায় অপহরণ, ১৮ দিন আটকে রেখে টানা ধর্ষণ
  •  
  •  
  •  
  •  

ঢাকা১৮ ডেস্ক: মাদরাসার এক ছাত্রীকে অপহঢ়ণ করে ১৮ দিন আটকে রেখে ৫ বন্ধু মিলে ধর্ষণ করেছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে বাগেরহাটের শরণখোলায়।

শুক্রবার (১২ জুন) এ ঘটনায় থানায় মামলা দায়ের করেছে মেয়েটির বাবা।

মামলায় অভিযুক্ত রাকিব হাওলাদার ও তার বন্ধু মুন্নাসহ মোট পাঁচজনকে আসামি করা হয়েছে। রাকিব একই উপজেলার মালিয়া রাজাপুর গ্রামের আবু হানিফ হাওলাদারের ছেলে। মালিয়ার মোড়ে ফ্লেক্সিলোডের দোকান আছে তার।

আরও পড়ুন: পঞ্চম শ্রেণীর ছাত্রী ৬ মাসের অন্তঃসত্ত্বা

জানা যায়, দীর্ঘদিন ধরে মাদরাসায় যাওয়া-আসার পথে মেয়েটিকে উত্ত্যক্ত করছিল রাকিব। গত ২২ মে সকালে বাড়ির সামনের রাস্তা থেকে মেয়েটিকে অপহরণ করে নিয়ে যায় রাকিব ও মুন্না।

আরও জানা যায়, গত বুধবার গোপনে তাকে ঢাকায় নিয়ে যাচ্ছিল রাকিব। খবর পেয়ে রায়েন্দা পাঁচরাস্তা বাদল চত্বর বাসস্ট্যান্ড থেকে মেয়েটিকে উদ্ধার করে পুলিশ। এ সময় রাকিব ও তার সহযোগীরা মেয়েটিকে ছেড়ে দিয়ে পালিয়ে যায়। সে এখন পুলিশের হেফাজতে আছে।

মেয়েটির অভিযোগ, ‘অপহরণের পর রাকিব আমাকে মুন্নার বাড়িতে নিয়ে যায়। বাড়িটির দোতলায় আটকে রেখে দিনের পর দিন ধর্ষণ করে। এতে মুন্না সার্বক্ষণিক সহযোগিতা করেছে।

তা ছাড়া মুন্নার ভাই খোকন ও তার মা খাদিজা বেগম আমাকে সব সময় চোখে চোখে রাখত যাতে আমি বাইরে বের হতে বা চলে যেতে না পারি। আমি বাড়ি যেতে চাইলে রাকিব বিভিন্ন ভয়ভীতি দেখাত। সে আমাকে জোর করে বিয়ে করতে চেয়েছিল।’

এ ব্যাপারে শরণখোলা থানার ওসি এস কে আব্দুল্লাহ আল সাইদ জানান, ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য মেয়েটিকে আজ শনিবার সদর হাসপাতালে পাঠানো হবে। এর আগে তার জবানবন্দি নেওয়া হবে।

ঢা/মমি

জুন ১৩, ২০২০ ১:৩৫

(Visited 11 times, 1 visits today)