প্রাথমিক শিক্ষকদের বেতন নিয়ে বিরাট সুখবর

বেতন-ভাতা নিয়ে প্রাথমিক শিক্ষকদের জন্য সুখবর
  •  
  •  
  •  
  •  

ঢাকা১৮ ডেস্ক:  প্রাথমিক শিক্ষকদের ১৩তম গ্রেডে বেতন নিয়ে সুখবর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষকদের জাতীয় বেতন স্কেলের ১৩তম গ্রেডে নির্ধারিত বেতন পেতে আর সমস্যা থাকছে না। সরকারি কর্মচারীদের বেতন-ভাতা দেওয়ার জন্য নির্ধারিত সফটওয়্যার ‘আইবাস প্লাস প্লাস‘ সফটওয়্যার মডিউলের সিস্টেমে ১৩তম গ্রেডের উচ্চধাপে বেতন নির্ধারণ সংক্রান্ত বিষয়টি সংযোজন (ইমপুট) করা হচ্ছে। আগামী এক সপ্তাহের মধ্যে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় আদেশ জারি করে বিষয় শিক্ষকদের জানিয়ে দেবে।

সরকারি কর্মচারীদের বেতন-ভাতা দেওয়ার জন্য নির্ধারিত সফটওয়্যার ‘আইবাস প্লাস প্লাস’ মডিউল অনুযায়ী ১৩তম গ্রেডের নিম্নধাপে সহকারী শিক্ষকদের বেতন নির্ধারিত হয়। ফলে শিক্ষকরা সফটওয়্যারে নিজেদের উচ্চধাপে বেতন নির্ধারণ করতে পারছিলেন না। সফটওয়্যার আপডেট করে অর্থ বিভাগকে এই সমস্যা সমাধান করতে অনুরাধ জানায় প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়। অর্থ বিভাগ সফটওয়্যার ‘আইবাস প্লাস প্লাস’ মডিউলের সিস্টেমে প্রাথমিক শিক্ষকদের উচ্চধাপে মূল বেতন নির্ধারণের বিষয়টি সংযোজন করছে।

জানতে চাইলে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব মো. আকরাম আল হোসেন, ‘অর্থ বিভাগের সঙ্গে যোগাযোগ করে বিষয়টির সমাধান করা হচ্ছে। আগামী সপ্তাহে এ সংক্রান্ত আদেশ জারি করা হবে।’

দেশের ৬৫ হাজার ৬২০টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ৩ লাখ ৫২ হাজার সহকারী শিক্ষক জাতীয় বেতন স্কেলের ১১তম গ্রেডে বেতনের দাবিতে দীর্ঘদিন আন্দোলন করে আসছিলেন। এরপর ১৩তম গ্রেডে এসব শিক্ষকদের বেতন নির্ধারণ করে সরকার। গত ৯ ফেব্রুয়ারি এই শিক্ষকদের ১৩তম গ্রেডে বেতন নির্ধারণের আদেশ জারি করে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়।

নিয়মানুয়ায়ী উচ্চতর গ্রেড প্রাপ্তির পর সহকারী শিক্ষকদের বেতন নির্ধারণ করা হয় নিম্ন ধাপে। কিন্তু গ্রেড অনুযায়ী বেতন নির্ধারণের পর দেখা যায়, বিদ্যমান বেতনের চেয়ে শিক্ষকরা কম বেতন পাচ্ছেন। এই বিষয়টি নিয়ে শিক্ষকদের মধ্যে অসন্তোষ দেখা দেয়। এই পরিস্থিতিতে বিষয়টি তুলে ধরে অর্থ বিভাগকে চিঠি দেয় প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়। সমস্যার সমাধানে ১৩তম গ্রেডের উচ্চধাপে সহকারী শিক্ষকদের বেতন নির্ধারণ করা হয়। কিন্তু এতে নতুন করে সমস্যা সৃষ্টি হয়। ‘আইবাস প্লাস প্লাস’ সফটওয়্যার মডিউলে ১৩তম গ্রেডের উচ্চ ধাপে বেতন নির্ধারণ সংক্রান্ত বিষয় ইনপুট থাকায় উচ্চতর গ্রেডে শিক্ষকরা বেতন নির্ধারণ করতে পারেননি।

বাংলাদেশ প্রাথমিক বিদ্যালয় সহকারী শিক্ষক সমিতির কেন্দ্রীয় সভাপতি মোহাম্মদ শামছুদ্দীন মাসুদ বলেন, ‘আট মাস আগে উচ্চতর গ্রেড দেওয়া হয়েছে। কিন্তু সফটওয়্যার জটিলতার কারণে আজ পর্যন্ত শিক্ষকদের বেতন ফিক্সেশন করা যাচ্ছে না। সফটওয্যার আপডেট করে সমস্যা সমাধানের উদ্যোগ নেওয়ার জন্য মন্ত্রণালয়কে ধন্যবাদ। আমরা আশা করবো দ্রুত এ বিষয়টির সমাধান করা হবে।

অক্টোবর ১১, ২০২০ ৬:২৫

(Visited 1,786 times, 1 visits today)