প্রক্সি জালিয়াতি করে মেধাতালিকায় ৫ম, সাক্ষাৎকারে আটক

  •  
  •  
  •  
  •  

বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি: জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয় (জাককানইবি)এর ২০১৯-২০ শিক্ষাবর্ষের স্নাতক (সম্মান) প্রথম বর্ষের ভর্তি পরীক্ষায় প্রক্সি জালিয়াতি করে উত্তীর্ণ হয়ে ভর্তির সাক্ষাৎকার দিতে এসে আটক হয়েছেন এক শিক্ষার্থী।

বৃহস্পতিবার( ৫ ডিসেম্বর) বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি সাক্ষাৎকার চলাকালীন সময়ে মারুফ রহমান নামের এ শিক্ষার্থী “ডি” ইউনিটের ভর্তির সাক্ষাৎকার দিতে আসলে ভর্তি পরীক্ষার এডমিট কার্ডে পরিদর্শকের স্বাক্ষর না থাকায় সন্দেহজনক মনে হয়।

পরবর্তীতে পরীক্ষার সময়ের হাতের লেখা এবং সাক্ষাৎকারের হাতের লেখায় অমিল পাওয়ায় সাক্ষাৎকার বোর্ডে দায়িত্বরত শিক্ষকগণ তাকে আটক করে প্রক্টরিয়াল বডির হাতে তুলে দেন।

পরে প্রক্টরিয়াল বডির কাছে প্রক্সির কথা স্বীকার করলে তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নিতে পুলিশে সোপর্দ করে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।

আটককারী মারুফ বলেন, `কবি নজরুল বিশ্ববিদ্যালয়ের সিএসই বিভাগের সাবেক ছাত্র তুষারের সাথে আমার যোগাযোগ হলে তুষার আমাকে এই বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রক্সি জালিয়াতির মাধ্যমে ভর্তি করে দেওয়ার আশ্বাস দেয়।

সে এজন্য আমার কাছে সাড়ে ৩ লক্ষ টাকা দাবি করে। চুক্তি হবার পরে পরীক্ষার দিন আমাকে ফোন অফ রাখতে বলে এবং ফলাফল প্রকাশিত হবার পরে আমার পজিশন পঞ্চম হবার বিষয়টি নিশ্চিত করে।

পরবর্তীতে বিশ্ববিদ্যালয়ের স্থানীয় সরকার এবং নগর উন্নয়ণ বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের (২০১৭-১৮ সেশনের) শিক্ষার্থী সাব্বির রহমান(হীরা) সাথে পরিচয় করিয়ে দেন।’

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর উজ্জ্বল কুমার প্রধান জানান, `ভর্তির সাক্ষাৎকার দিতে এসে মারুফ রহমান নামে এক শিক্ষার্থী আটক হয়েছে, সে ভর্তি পরীক্ষায় অংশ নেয়নি। তার প্রবেশপত্রে অন্য কেউ পরীক্ষা দিয়ে গেছে। আটক হওয়ার পরে সে অপরাধ স্বীকার করেছে। তার বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য পুলিশকে নির্দেশ দেয়া হয়েছে।’

উল্লেখ্য যে, বৃহস্পতিবার (৫ ডিসেম্বর) ‘ডি’ ইউনিটের মৌখিক পরীক্ষা দিতে এসে আটক হয় মারুফ। ‘ডি’ ইউনিট প্রথম শিফটের মেধাতালিকায় ৫ম স্থান অধিকার করে।যার রোল ছিলো ১৩৮৫৮।

মৌখিক পরীক্ষার সময় পরিদর্শকের স্বাক্ষরহীন ডুপ্লিকেট প্রবেশপত্র প্রদর্শনসহ পরীক্ষক কর্তৃক এমসিকিউ প্রশ্নপত্র থেকে প্রশ্ন করা হলে ভুল উত্তর প্রদান করে যেগুলো ওএমআর শিটের সাথে মিলেনি এবং লিখিত পরীক্ষার খাতার সাথে হাতের লেখার অমিল পরিলক্ষিত হলে যথাযথ কর্তৃপক্ষের দৃষ্টিগোচর হয় এবং পরবর্তীতে জিজ্ঞাসাবাদে মারুফ ভর্তি জালিয়াতির বিষয় স্বীকার করে।

ঢা/টিডি/তাশা

(Visited 1 times, 1 visits today)