পেঁয়াজের দাম কমেছে

দেশে আসলো ৩১৫ টন পেঁয়াজ
  •  
  •  
  •  
  •  

ঢাকা১৮ প্রতিবেদক: দেশে পেঁয়াজের বাজারে স্বস্তি ফিরতে শুরু করেছে। সারাদেশের বিভিন্ন পাইকারি ও খুচরা বাজারও দাম কমেছে পণ্যটির। ফলে আরও দাম কমার অপেক্ষায় ক্রেতা সমাগম নেই বাজারে। আগামী এক সপ্তাহের মধ্যে আগের দামে পেঁয়াজ বিক্রি হবে আশা করছে সরকার।

রোববার (২০ সেপ্টেম্বর) দেশের বিভিন্ন পাইকারি ও খুচরা বাজারে কেজি প্রতি প্রায় ১০-১৫ টাকা দাম কমেছে পণ্যটির। ফলে আরো দাম কমার অপেক্ষায় ক্রেতারা। একই সঙ্গে মিয়ানমার থেকে পেঁয়াজ আসা শুরু হয়েছে।

স্থলবন্দরে আটকে থাকা ভারতীয় পেঁয়াজ আসায় পাইকারী বাজারে সব ধরনের পেঁয়াজের দাম কেজিতে ৮ থেকে ১০ টাকা কমেছে। কারওয়ান বাজারে দেশি পেঁয়াজের পাইকারি দর ৭০ থেকে ৭২ টাকা। ভারতীয় পেঁয়াজ ৫২ থেকে ৫৫ টাকা।

গত শনিবার খুচরা বাজারে এলাকা ভেদে দেশি পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে প্রতি কেজি ৮৫ থেকে ১০০ টাকা। ভারতীয় পেঁয়াজ পাওয়া যাচ্ছে ৭০ থেকে ৮০ টাকায়।

বাণিজ্য মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা যায়, পেঁয়াজের বাজারে সিন্ডিকেটের মাধ্যমে কৃত্রিম সংকট সৃষ্টি করে রাতারাতি অস্বাভাবিকভাবে দাম বাড়ানো হয়েছে। গত বছরও একই কায়দায় ফায়দা লুটেছে অসাধু চক্র। এবার বিষয়টি নিয়ে নড়েচড়ে বসেছে প্রতিযোগিতা কমিশন। দেশের বাজারে একচেটিয়া বা মনোপলি ঠেকাতে কাজ করা সরকারের এই প্রতিষ্ঠান চলতি সপ্তাহেই এক সভার আয়োজন করেছে। সভায় বাণিজ্য মন্ত্রণালয়, ট্যারিফ কমিশন, কৃষি মন্ত্রণালয় ও গোয়েন্দা সংস্থার প্রতিনিধিদের ডাকা হবে।

সস্প্রতি বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি বলেছেন, পেঁয়াজের বাজারে স্বস্তি ফিরিয়ে আনতে সরকার প্রথম দিন থেকেই নানা উদ্যোগ নিয়েছে। এরমধ্যে মিয়ানমার থেকে পেঁয়াজের একটি চালান এসে পৌঁছেছে। দেশের শীর্ষস্থানীয় ভোগ্যপণ্যের ব্যবসায়ীদের দিয়ে পেঁয়াজ আমদানি করানো হবে। ব্যবসায়িক উদ্দেশে বা লাভের জন্য এ পেঁয়াজ আমদানি করা হচ্ছে না। এটি সামাজিক দায়বদ্ধতা থেকে ব্যবসায়ীরা করবেন। এসব পেঁয়াজের বেশিরভাগ সরকার কিনে নেবে। তবে টিসিবির বাইরে অন্য মাধ্যমে এসব পেঁয়াজ বিক্রি করা হতে পারে। ইতোমধ্যে অনলাইনে পেঁয়াজ বিক্রির ঘোষণা দিয়েছে টিসিবি।

ঢা/কেএম

সেপ্টেম্বর ২০, ২০২০ ১:০২

(Visited 52 times, 1 visits today)