পিয়ন থেকে ডিসির ঘরের বউ হওয়ার সাধনা

  •  
  •  
  •  
  •  

মাহবুবুল ইসলাম: বিগত কয়েক দিন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমসহ মিডিয়াকে মাতিয়ে রেখেছে জামালপুরের জেলা প্রশাসক(ডিসি) আহমেদ কবীরের গোপন রুমে তারই নারী সহকারী সানজিদা ইয়াসমিন সাধনার সাথে অবৈধ শারীরিক সম্পর্কের ভিডিও।

এমন ঘটনা সমাজে অহরহর ঘটলেও একজন জেলা প্রশাসকের কাছে সমাজ কখনই এমন কিছু আশা করে না। ‍যিনি ওই জেলার সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীদের সামনে বিভিন্ন নীতিকথার বুলি ছড়ান। সেসব শিক্ষার্থীরাইতো এখন তার গোপন ভিডিও দেখে তার চরিত্র নিয়ে প্রশ্ন তুলবে!

এবার ফাঁস হওয়া নিজের গোপন ভিডিওর নায়ীকাকেই বিয়ে করতে যাচ্ছেন ওএসডি হওয়া ডিসি আহমেদ কবির।

আপত্তিকর ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যেমে ভাইরাল হওয়ার পর নিজের চাকরি বাঁচাতেই ডিসি এমন সিদ্ধান্ত নিয়েছেন বলে কয়েকটি সূত্র জানিয়েছে।

আহমেদ কবীরের বর্তমান স্ত্রী কঠিন হলেও, স্বামীর চাকরি বাঁচাতে এতে সম্মতি দেয়ার চিন্তা করছেন বলে জানা গেছে।

কঠিন সমালোচনার মুখে থাকা ওএসডি হওয়া জামালপুরের সাবেক ডিসি সবদিক চিন্তা করে সানজিদা ইয়াসমিন সাধনাকে বিয়ে করে স্ত্রীর মর্যাদা দেওয়াকেই নিজের জন্য উপযুক্ত ও সুবিধাজনক শাস্তি মনে করছেন।

এদিকে সাধনার চরিত্র নিয়েও উঠে এসেছে বিভিন্ন প্রশ্ন। একাধিক বিবাহ বিচ্ছেদ এবং নিজের অশালিন চলাফেরার কারণে জামালপুরে সমালোচিত সাধনা।

পিয়নের চাকরি করে ডিসির সাথে সম্পর্ক গড়ে যিনি ছায়া ডিসি হিসেবে পরিচিত হয়েছিলেন, সে এখন বউ হয়েই ডিসির ঘরে উঠতে যাচ্ছেন। তাহলে তার জন্য ক্ষতি কী! তার তো চারিত্রিক সনদে কালো দাগ আগে থেকেই লেগে আছে!

ভিডিও প্রকাশিত হওয়ার পর জামালপুরের স্থানীয় বাসিন্দা ও ভুক্তভোগী কর্মকর্তা-কর্মচারীরা সেই ডিসি ও সাধানার বিরুদ্ধে মুখ খুলতে শুরু করেছে। জনসম্মুখে আসতে শুরু করেছে তাদের অজানা কাহিনী।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, জামালপুরের জেলা প্রশাসক আহমেদ কবীরের আস্কারা পেয়ে, অফিস সহকারী সাধনা হয়ে উঠেছিল ছায়া ডিসি, নতুন ডিসির কার্যক্রম শুরু ২০১৮ সালে উন্নয়ন মেলায় হস্তশিল্পের স্টল বরাদ্ধ নেয়ার সময় জেলা প্রশাসক আহমেদ কবীরের সাথে পরিচয় হয় সাধনার।

কথা এবং রূপে মুগ্ধ হয়ে তাকে বিনামূল্যে স্টল বরাদ্ধ দেন আহমেদ কবীর। উন্নয়ন মেলা চলাকালে তাদের মধ্যে অনৈতিক সম্পর্ক গড়ে ওঠে। পরবর্তীতে যা শারীরিক সম্পর্কে রূপ নেয়। এবং পরবর্তীতে যা প্রকাশ্যে আসে গোপন ক্যামেরায়।

ডিসি সাহেব তার লুকিয়ে রাখা কাম বাসনার চরিত্রকে প্রকাশ করে দিলেন সাধনার আচলের মায়ায়। নষ্ট চরিত্রের অধিকারী সাধনাও ডিসি সাহেবকে সেই সুযোগে কাজে লাগিয়ে নিজের প্রয়োজন মিটিয়েছে ইচ্ছেমতো। ডিসি সাহেবের চাকরি বাঁচাতে তার স্ত্রী একজন নষ্ট মহিলাকে ঘরে তুলে নিচ্ছেন নিজের সতীন করে। যে মহিলার জন্য নিজের বাবার হারানো সম্মানের নিষিদ্ধ গল্প নিজের ঘারে বোঝার মতো বইয়ে নিয়ে সমাজে লজ্জায় মুখ দেখাতে পারছে না সন্তানেরা, সেই মহিলাকেই নিজের ঘরে জায়গা দিতে হচ্ছে ডিসির বিবাহযোগ্য কন্যার।

ঢ/এমআই

আগস্ট ২৭, ২০১৯ ১০:৪৫

(Visited 86 times, 1 visits today)