নৌবাহিনীর কর্মকর্তাকে মারধর: যে সাজা পেলেন ইরাফান সেলিম

  •  
  •  
  •  
  •  

ঢাকা১৮ প্রতিবেদক: আওয়ামী লীগ নেতা ও সংসদ সদস্য হাজী সেলিমের দ্বিতীয় ছেলে ইরফান সেলিম ও তার দেহরক্ষী মোহাম্মদ জাহিদকে অবৈধ ওয়াকিটকি রাখার দায়ে ছয় মাস এবং মাদক রাখা ও সেবনের দায়ে ছয় মাস করে মোট এক বছরের কারাদণ্ডাদেশ দিয়েছেন র‍্যাবের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সারওয়ার আলম।

সোমবার (২৬ অক্টোবর) সন্ধ্যায় এক সংবাদ সম্মেলনে র‌্যাবের লিগ্যাল অ্যান্ড মিডিয়া উইংয়ের পরিচালক লেফটেন্যান্ট কর্নেল আশিক বিল্লাহ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

আশিক বিল্লাহ বলেন, ইরফান সেলিমের বাসা থেকে পাঁচ-ছয় লিটার বিদেশি মদ, ৩৮ থেকে ৪০টি ওয়াকিটকি উদ্ধার করা হয়। এছাড়া তার দেহরক্ষী জাহিদের কাছে ৪০০ পিস ইয়াবা ও বিদেশি অস্ত্র পাওয়া যায়।

তিনি আরো জানান, এসব ওয়াকিটকির মাধ্যমে এলাকা নিয়ন্ত্রণ ও চাদাবাজি করতো হাজী সেলিমের ছেলে ইরফান। চকবাজারের তাদের বাসার পাশে টর্চার সেলের সন্ধান মেলে। সেখানে মানুষকে জিম্মি করে নির্যাতন করা হতো।

ভ্রাম্যমাণ আদালতের এই দণ্ডের পাশাপাশি এরফান ও তার দেহরক্ষীর বিরুদ্ধে অস্ত্র ও মাদক আইনে দুটি মামলা দায়ের করা হবে বলে জানান র‌্যাবের এই কর্মকর্তা।

ইরফান ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের ৩০ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর। এছাড়া নোয়াখালীর এক এমপির জামাতা।

এর আগে রবিবার রাতে রাজধানীর কলাবাগান ক্রসিংয়ের কাছে হাজী সেলিমের গাড়ি থেকে নেমে নৌবাহিনীর কর্মকর্তা ওয়াসিফ আহম্মেদ খানকে মারধর করা হয়। এসময় ওই কর্মকর্তার সঙ্গে তার স্ত্রীও ছিলেন।

এ ঘটনায় সোমবার হাজী সেলিমের ছেলেসহ চারজনের নাম উল্লেখ করে ধানমন্ডি থানায় মামলা হয়। মামলার মূল আসামি হলেন সংসদ সদস্যের ছেলে ইরফান।

অভিযোগ থেকে জানা যায়, নৌবাহিনীর ওই কর্মকর্তার মোটরসাইকেলকে ধাক্কা দেয় সংসদ সদস্যের স্টিকার লাগানো একটি গাড়ি। এরপর গাড়ি থেকে কয়েক ব্যক্তি নেমে ওই কর্মকর্তাকে মারধর করে। এতে তার দাত ভেঙে যায়। এসময় তার স্ত্রী বাঁচাতে এলে তাকেও লাঞ্চিত করা হয়। গাড়িটি হাজী সেলিমের। তবে ঘটনার সময় তিনি গাড়িতে ছিলেন না। তার ছেলে ও নিরাপত্তারক্ষী ছিলেন।

অক্টোবর ২৬, ২০২০ ১১:২২

(Visited 56 times, 1 visits today)