নারী প্রতারক পলির প্রতারণার ফাঁদে নিঃস্ব উত্তরার ব্যবসায়ী (ভিডিও)

নারী প্রতারক পলির প্রতারণার ফাঁদে নিঃস্ব উত্তরার ব্যবসায়ী (ভিডিও)
  •  
  •  
  •  
  •  

ঢাকা১৮ প্রতিবেদক : রাজধানীর এয়ারপোর্ট এলাকার আশকোনায় একটি ফ্ল্যাট কিনে সর্বস্ব হারিয়েছেন উত্তরার ব্যবসায়ী মো. হোসেন আলি। ফ্ল্যাটের ৪৫ লাখ টাকা পরিশোধ করার পরও এখনো মালিকানা পায়নি ভুক্তভোগী। এ ঘটনায় প্রতারক সুরাইয়া সুরভি পলির বিরুদ্ধে উত্তর পশ্চিম থানায় একটি মামলাও দায়ের করেন ওই ব্যবসায়ী। এরপরও কোন সুরাহা না পাওয়া প্রশাসনের ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন সচেতনমহল।

জানা গেছে, ২০১৭ সালের ৭ ফেব্রুয়ারি সুরাইয়া সুরভি পলির কাছ থেকে ৫০ লাখ টাকা মূল্যের ফ্ল্যাট কিনেন হোসেন আলী। ফ্ল্যাটের মূল্যবাবদ তিন কিস্তিতে মোট ৪৫ লাখ টাকা পলিকে পরিশোধ করেন তিনি। এরপরও ফ্ল্যাট বুঝিয়ে দেয়া হয়নি তাকে।

ভুক্তভোগী ব্যবসায়ী মো. হোসেন আলী জানান, ‘প্রথমে আমাকে (হোসেন আলী) ব্যবসার প্রলোভন দেখিয়ে টাকার দাবি করা হয়। তিনি রাজি না হওয়ার তাকে ফ্ল্যাট বিক্রির কথা জানালে সুরাইয়া সুরভি পলির কাছ থেকে ফ্ল্যাট কিনতে জি হন তিনি। এরপর আলাপ আলোচনা করে ফ্ল্যাটের মূল্য নির্ধারিত হলে নিধারিত মূল্য প্রায় পরিশোধ করার পরেই ফ্ল্যাট দেয়ার নামে টানবাহানা শুরু করে পলি।’

তিনি জানান, ‘গত তিন বছর আগে সুরাইয়া সুরভি পলির কাছ থেকে একটি ফ্ল্যাট কিনেছিলাম। উনার (পলি) সাথে আমার শ্যালকের পরিচয় থাকায় আমি উনার (পলি) কাছ থেকে ফ্ল্যাটটা ক্রয় করি। ফ্ল্যাটের নির্ধারিত মূল্যের ৫০ লক্ষ টাকার মধ্যে ৪৫ লক্ষ টাকা তিনটি দলিলের মাধ্যমে পরিশোধ করি। এরপর থেকেই ফ্ল্যাট বুঝিয়ে দিবে বলে তিন বছর ধরে ঘোরাচ্ছে আমাকে।’

হোসেন আলী জানান, ‘আমি এরপর উত্তরা পশ্চিম থানায় ২৪/১১/২০১৯ তারিখে সাধারণ ডায়রি (জিডি) করি (জিডি নম্বর- ১১৮৮)। পুলিশ বিষয়টি সম্পর্কে খোঁজ নেয়ার পর আমাকে মামলা করার জন্য বলে, আমি মামলা দায়ের করি। কিন্তু মামলার পর পলি কোর্টে হাজিরা দিতে যায়নি। এরপর তার নামে ওয়রেন্টও বের হয়। এখন পর্যন্ত বিষয়টি এভাবেই আছে।’

জিডি নম্বর- ১১৮৮

 

এমন প্রতারণা অন্য কারো সাথে হয়েছে কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘আমার জানা মতে, এই ধরনের প্রতারণা উনি (পলি) আমি ছাড়াও আরো দুই জনের সাথে করেছে। উনার (পলি) বাড়ির সামনে একটা হার্ডওয়্যারের দোকান আছে তার কাছ থেকে ৬ লক্ষ টাকা নিয়েছে দক্ষিণ কোরিয়া পাঠবে বলে। এছাড়া আরেকজনের কাছ থেকে ৫ লক্ষ টাকা নিয়ে তাকেও চেক দিয়েছে- যেটা মূল্যহীন। আরও কোন প্রতারণা সে করেছে কিনা তা আমার জানা নেই।’

টাকা চাইতে গেলে বাঁধার সম্মুখীন হয়েছেন কিনা জানতে চাইলে হোসেন আলী অভিযোগ করে বলেন, ‘টাকা চাইতে গেলে পলির নিজস্ব কিছু সন্ত্রাসী দিয়ে ভয় দেখনো হয় আমাকে। কখন কি হয়ে যায় এই ভয়ে ওই এলাকাতেই ঢুকতে পারি না আমি।

মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে আকুল আবেদন জানিয়ে কষ্টে অর্জিত টাকাগুলো প্রতারকের কাছ থেকে উদ্ধারপূর্বক দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি করেন ব্যবসায়ী মো. হোসেন আলী।

এ বিষয়ে ফ্ল্যাটের মালিক সুরাইয়া সুরভি পলির সাথে বার বার যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও ঢাকা১৮.কম প্রতিবেদক তার মুঠোফোনটি বন্ধ পায়।

ভিডিও দেখতে এখানে ক্লিক করুন:

ঢা/আরকেএস

সেপ্টেম্বর ১৪, ২০২০ ১১:০৮

(Visited 242 times, 1 visits today)