নাগরিকত্ব আইনের সমর্থনে আজ বিজেপির মহামিছিল

  •  
  •  
  •  
  •  

নিউজ ডেস্ক : পুরো ভারত যেসময় নাগরিকত্ব আইনের বিরোধীতায় সরব। সেখানে কোলকাতায় সোমবার বিজেপির মহা মিছিল হবে আইনটির সমর্থনে।

এবার পথে বিজেপি নামবে, যার নেতৃত্বে থাকবেন দলের সর্বভারতীয় কার্যকরী সভাপতি জে পি নাড্ডা। আর এতে বড় সংঘর্ষের আশঙ্কায় স্তব্ধ পুরো কোলকাতা শহর।

এমনিতেই পর পর মিছিলে স্তব্ধ শহর। বলা যায় মিছিলনগরী হয়ে উঠেছে কোলকাতা। সোমবার আরও একটি মিছিল হবে শহরে। রাজ্য বিজেপির ডাকে এই মিছিল। মিছিল ঘিরে সাধারণ মানুষের দুর্ভোগের পাশাপাশি অশান্তির আশঙ্কা।

দেশজুড়ে নাগরিকত্ব আইনের বিরোধিতায় আন্দোলন চলছে। থেমে নেই বাংলাও। শাসক দলের পাশাপাশি বিরোধী দলও আন্দোলনে নেমেছে। নাগরিকত্ব আইন ও এনআরসি বিরোধিতায় রাজপথে নেমেছে ছাত্রসমাজও।

নাগরিকত্ব আইন ও এনআরসি বিরোধী আন্দোলনে পরপর তিনদিন মিছিলে হেঁটেছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তৃণমূল কংগ্রেস লাগাতার কর্মসূচি নিয়েছে।

কিন্তু নাগরিকত্ব আইনের সমর্থনে এতদিন রাজ্য বিজেপি তেমন বড় ধরনের মিছিল করেনি। এবার তারা রাজপথে নামবে। এমনটাই বিজেপি সূত্রে খবর।

সোমবার নাগরিকত্ব আইনের সমর্থনে সুবোধ মল্লিক স্কোয়ার থেকে শ্যামবাজার পর্যন্ত মহামিছিল করবে বিজেপি। বেলা বারোটা নাগাদ মিছিল শুরু হবে। মিছিলটি সেন্ট্রাল এভিনিউ ধরে শ্যামবাজার পর্যন্ত যাবে।

ফলে এই মিছিল ঘিরে ফের আরও একবার স্তব্ধ হতে পারে কলকাতা শহর। যানজটে আটকে দূর্ভোগে পড়তে পারেন সাধারণ মানুষ। পাশাপাশি রাজ্য রাজনীতি উত্তপ্ত হয়ে উঠতে পারে।

লালবাজার সূত্রের খবর, মিছিলকে ঘিরে যাতে কোনও অপ্রীতিকর ঘটনা না ঘটে, তার জন্য মোতায়েন করা হবে বাড়তি পুলিশ বাহিনী। যানবাহন সচল রাখতে শহরের গুরুত্বপূর্ণ মোড়ে থাকবে অতিরিক্ত ট্রাফিক পুলিশ।

শনিবার আরও একবার প্রবল বিক্ষোভের সাক্ষী থাকল শহর কলকাতা। পড়ুয়াদের জনস্রোতে ধুন্ধুমার সেন্ট্রাল অ্যাভিনিউ চত্বর।

ওই দিন ছাত্রছাত্রীদের মিছিল শহিদ মিনার থেকে চাঁদনি চক হয়ে সেন্ট্রাল অ্যাভিনিউয়ে যেতেই উত্তেজনা চরমে পৌঁছায়। ব্যারিকেড দিয়ে পড়ুয়াদের জনস্রোত আটকানোর চেষ্টা করে পুলিশ।

কয়েক হাজার পড়ুয়া পুলিশের ব্যারিকেড ভেঙে বিজেপির সদর দফতরে ঢোকার চেষ্টা করে।

ডিভাইডার চপকে এগোনর চেষ্টা করেন পড়ুয়াদের একাংশ। পুলিশের সঙ্গে তুমুল ধস্তাধস্তি হয় পড়ুয়াদের। কেন্দ্র বিরোধিতায় স্লোগানে উত্তাল হয় সেন্ট্রাল অ্যাভিনিউ চত্বর।

শনিবার সন্ধেয় ব্যস্ত সময়ে কার্যত অবরুদ্ধ হয়ে পড়ে সেন্ট্রাল অ্যাভিনিউ চত্বর। এককথায় মুহূর্তে স্তব্ধ হয়ে যায় মধ্য কলকাতার স্বাভাবিক জনজীবন।

সেন্ট্রাল অ্যাভিনিউ চত্বরে সারি দিয়ে দাঁড়িয়ে পড়ে যানবাহন। অফিস সেরে বাড়ি ফেরার পথে ব্যাপক যানজটে নাকাল হতে হয় যাত্রীদের।

ঢা/এমএম

ডিসেম্বর ২২, ২০১৯ ১০:০৯

(Visited 18 times, 1 visits today)