টেকনোলজির ফাঁদে

টেকনোলজির ফাঁদে

রোকসানা হাবিব লুবনাঃ প্রতিদিন আমরা একা এবং অসহায় হয়ে যাচ্ছি। নিজের অস্তিত্ব খুঁজে পেতে আমরা সাহায্য নিচ্ছি অপরিচিত কিছু মানুষের কাছে। মানুষগুলি আদৌ সঠিক মানুষ কিনা সেটা জানারও কোন চেষ্টা আমরা করি না।

যারা লেখাটি পড়ছেন তারা হয়তো ভাবছেন? কিভাবে একা এবং অসহায় হচ্ছি আমি ? না না এটা মনে হয় আমার কাহিনী নয়। হ্যাঁ এটা আপনার আমার সবার কাহিনী।

আমাদেরকে অসহায় করছে টেকনোলজি, আমাদেরকে এমন ভাবে ভীত করে দিয়েছে এই টেকনোলজি যে আমরা কেউ এখন আর মেকআপ না করে ছবি তুলে আপলোড দিতে পারি না।

এমনকি একটা ড্রেস আমরা একবার পড়ে ছবি আপলোড দিলে, সেই ড্রেসটা পরে আর কোথাও যেতে চাই না কারণ আমরা ভয় পাই, চিন্তা করি পাছে লোকে কিছু বলবে!

শুধু এটাই নয়, প্রতিদিন আপনার নিজের বন্ধুদের থেকেও অনেক বেশি ফেসবুকের বন্ধুদের সাথে মেসেঞ্জারে চ্যাট করছেন। আপনি বলবেন, আমি তো ওকে চিনি। নিজেকে প্রশ্ন করুন কয়জন বন্ধুকে আপনি সামনাসামনি চেনেন ? আপনি কি আমাকে চেনেন, এই আমি ব্যক্তি মানুষটি কেমন ? না আপনি আমাকে চেনেন না;

আমি হয়তো আপনার ভাল কোন বন্ধুর মিউচুয়াল ফেসবুক বন্ধু। তাই বলে কি আমি আপনারও ভাল বন্ধু হবো ? আপনার ফেসবুকে যে সব ছেলে/মেয়ে বন্ধু আছে তারা কি সত্যি আপনাকে পছন্দ করে আপনার বন্ধু লিস্টে যোগ হয়েছেন ?
টেকনোলজির ফাঁদে
টেকনোলজির ফাঁদে

তাহলে আপনার ওয়ালে আসুন এই ব্যাপার- দেখুন তো কয়জন আপনার পোস্টে লাইক মানে সে পোষ্টটি দেখেছে? কমেন্ট মানে আপনার পোষ্টটা নিয়ে মতামত দিয়েছে ?

এখন হয়তো আপনি বলবেন সবাই কি সবকিছু পছন্দ করে! হ্যাঁ কথা সেটাই, সবাই সব কিছু পছন্দ করেন না তাই বলে কি আপনার ২টা পোস্টের একটিও তার পছন্দ হবে না ? একটিও সে নোটিশ করে লাইক বাটন চাপ দিয়ে আপনাকে বোঝাবে না যে আপনার পোষ্টটি সে দেখেছে ?

অথচ ঐ ব্যক্তিটি আপনাকে প্রতিদিন ইনবক্সে শুভ সকাল, শুভ সন্ধ্যা বলছে। আর আপনি বোকার মতন মনে করছেন, আপনি তার খুব পছন্দের বিশেষ কোন মানুষ তাই তো সে আপনাকে সকাল বিকাল মনে করে শুভেচ্ছা পাঠাচ্ছে।
টেকনোলজির ফাঁদে
টেকনোলজির ফাঁদে

ব্যাপারটা আসলে তা নয়, এই শুভ সকাল, শুভ দুপুর এইগুলি সে সবাইকেই পাঠাচ্ছে। মাঝে মাঝে সে বোর হলে ইনবক্সে এসে আপনার সাথে কথা বলে, খুব মিষ্টি কিছু কথা। যেটা শুনে আপনার মনে হয়- হায় আল্লাহ এই মানুষটা আমাকে কত ভালবাসে কত পছন্দ করে কিন্ত আমার পরিবারের মানুষগুলি আমাকে খেয়ালও করে না!

এইভাবেই আস্তে আস্তে অপরিচিত একজন মানুষ আপনার বন্ধু (খুব কাছের) হয়ে যায় এবং আপনাকে ব্যস্ত রাখে তার সেই মিষ্টি কথায় এবং সরিয়ে আনে আপনার পরিবারের আপনজনদের কাছ থেকে কারণ আপনার মন পড়ে থাকে মেসেজ বক্সে।

আপনি নিজের অজান্তেই একটা বিশাল Silly emotion কে সত্যিকার জগত মনে করে ফেলেন। হারিয়ে যায় আপনার নিজের মূল্যবান কিছু সময় যা আপনি আপনার আপনজন এবং সত্যিকার বন্ধুদেরকে দিতে পারতেন।
টেকনোলজির ফাঁদে
টেকনোলজির ফাঁদে

আবার অনেকেই বিভিন্ন গ্রুপে চ্যাট করেন তাই কারো ফেসবুকে আসার সময় পান না। একবার ভাবুন এইভাবে আপনি গ্রুপে চ্যাট করে নিজেকে আরও বেশি একা এবং টেকনোলজির হাতে বন্ধি করছেন কারণ Group চ্যাটে এক একজন এক একটা বিষয় নিয়ে কথা বলছে;

আপনি সেই খেই রাখার জন্য সবার সব কথা পড়ছেন এবং তারপর আপনার উত্তর লিখছেন অথচ এই সময়টা আপনি আপনার সত্যিকার বন্ধুদের সাথে সামনাসামনি আড্ডা দিতে পারতেন অথবা ফোনে কিছুক্ষণ কথা বলেই যার যার কাজে আবার চলে যেতে পারতেন।

সবকিছুই আপনি করতে পারেন যদি আপনি আপনার উপর নিয়ন্ত্রণটা রাখতে পারেন। তবে সব সময় মনে রাখবেন ফেসবুকে এ্যাড হয়ে যে ছেলে/মেয়ে আপনার পোস্টে কমেন্ট না করে বা লাইক না করে ইনবক্সে কথা বলছে সে আসলে আপনাকে বন্ধু মনে করে আপনার লিস্টে এ্যাড হয়নি।
টেকনোলজির ফাঁদে
টেকনোলজির ফাঁদে

সে এ্যাড হয়েছে তার একাকীত্ব থেকে আপনার সাথে ফালতু আড্ডা দেবার জন্য। এবং এই আড্ডা বজায় রাখার জন্য হাজারটা মিথ্যা সে তৈরি করে রেখেছে – আপনি অসাধারণ, সুন্দরি/সুন্দর অথবা আপনার মতন ভাল মানুষ সে কখনই দেখি না।

এখন আপনি এইসব ছেলে/মেয়ের মন ভোলানো কথা বিশ্বাস করে যদি টেকনোলজি হাতে নিয়ে ঘুরে বেড়ান তাহলে ক্ষতি তার নয়, ক্ষতি হবে আপনার এবং তাকে আপনি বোঝাতে সাহায্য করবেন আপনার মতন আরও অনেক মানুষ আছে এমনই বোকা তাই তার বন্ধুত্বের ফাঁদটা দিন দিন বড় আরও বড় হবে।

এখন আপনি সিদ্বান্ত নিন এইসব ফেক মানুষদের আপনি কি আগে বাড়তে দিবেন এবং নিজেকে সত্যি বন্ধি করে ফেলবেন এই টেকনোলজির হাতে ? নিজের অজান্তেই সত্যিকার মানুষদের এবং নিজের আপনজনদের থেকে নিজেকে অনেক দুরে সরিয়ে ফেলবেন ??
রোকসানা হাবিব লুবনা
রোকসানা হাবিব লুবনা
লেখক পরিচিতিঃ প্রবাসী বাংলাদেশী; বামিংহাম, ইউকে।
[ঢা/এফএ]

(Visited 1 times, 1 visits today)