চুল পড়া রোধের ঘরোয়া উপায়

  •  
  •  
  •  
  •  

লাইফষ্টাইল ডেস্ক: নানা কারণে চুল পড়া বেড়ে যেতে পারে। যেমন, হরমোনাল ইমব্যালেন্স, থাইরয়েড, শরীরে পুষ্টির অভাব, অত্যধিক ধূমপান, চুলে কালার করা, ওষুধের সাইড এফেক্ট ইত্যাদি কারনে চুল পড়ার সমস্যা ব্যপকভাবে বৃদ্ধি পায়।

চুল পড়া কমানোর কিছু উপায়:

আমলকির ব্যবহার: শরীরে ভিটামিন সি এর অভাবে অতিরিক্ত পরিমাণে চুল পড়ার সমস্যা দেখা দেয় এবং আমলকিতে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন সি থাকায় আমলকি চুলের দ্রুত বৃদ্ধি ঘটাতে সহায়তা করে আমলকি।

অ্যালোভেরা: অ্যালোভেরা চুলে পুষ্টি জোগায় এবং চুলের উজ্জ্বলতা বৃদ্ধি পায়। অ্যালোভেরা ক্ষতিগ্রস্ত স্ক্যাল্পকে করে তোলে সতেজ এবং চুল গজাতে সাহায্য করে। ভিটামিন সি এবং ভিটামিন ই সমৃদ্ধ অ্যালোভেরা চুলকে মসৃন রাখে।

গ্রিন টি: গ্রিন টি র মধ্যে প্রচুর পরিমাণে রয়েছে পলিফেনোল ও অ্যান্টি অক্সিডেন্ট যা চুলকে ক্ষতিকারক ইউভি রশ্মির হাত থেকে বাঁচানোর পাশাপাশি চুলের দ্রুত বৃদ্ধি, চুলে খুশকি, এবং স্ক্যাল্পের সমস্যা, ডগা ফাটা প্রভৃতি সমস্যা দূর করতে সাহায্য করে এবং চুলের বৃদ্ধি এবং চুলের পুষ্টি তে সহায়তা করে। সপ্তাহে দু দিন চুলে বা স্ক্যাল্পে গ্রিন টি লাগিয়ে জলে ধুয়ে নিতে হবে।

লেবুর রস: লেবুতে ভিটামিন সি থাকায় তা অধিক মাত্রায় চুল পড়ে যাওয়াকে কমাতে সাহায্য করে। লেবু সাইট্রিক অ্যাসিড, ক্যালসিয়াম, ম্যাগনেসিয়াম, ভিটামিন সি সমৃদ্ধ হওয়ায় চুলের খুশকি দূর করে চুলকে উজ্জ্বল রাখে এবং মাথার ত্বকে কোনো সমস্যা হলেও তার সমাধান করে। সপ্তাহে এক দিন পাতি লেবুর রস মাথার ত্বকে মেখে কিছুক্ষন রেখে জলে ধুয়ে নিতে হয়।

পেঁয়াজের রস: চুল পড়া রোধ করে চুলের দ্রুত বৃদ্ধি ঘটাতে অন্যতম কার্যকরী উপাদান হল পেঁয়াজের রস। পেঁয়াজের রসে অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল এবং অ্যান্টি-ফাঙ্গাল উপাদান থাকায় চুলকে পুষ্টি জুগিয়ে চুলকে ঘন ও মজবুত করে তোলে।

ঢা/এসআর

ফেব্রুয়ারি ২৪, ২০২১ ৯:৫৩

(Visited 26 times, 1 visits today)