চীনকে সত্যিই পিছু হটছে নাকি ৬২’র পুনরাবৃত্তি ঘটতে যাচ্ছে

চীনকে সত্যিই পিছু হটছে নাকি ৬২'র পুনরাবৃত্তি ঘটতে যাচ্ছে।

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : লাদাখ সীমান্তের গালওয়ান থেকে পিছিয়ে যাচ্ছে চীনা বাহিনী। কিন্তু এই পিছিয়ে যাওয়া ‘সাময়িক’ কিনা সেই প্রশ্ন তুলেছে ভারতীয় গণমাধ্যমগুলো।

দেশটির গণমাধ্যম আনন্দবাজার জানায়, পিছিয়ে যাওয়ার এ ঘটনা ১৯৬২ সালেও ঘটেছিল। সেই ১৯৬২-র যুদ্ধের অভিজ্ঞতার কথা মাথায় রেখেই সতর্ক ভারত। ওই বছর গরমের শুরুতে সীমান্ত সঙ্ঘাতে জড়িয়ে পড়েছিল ভারত এবং চীন। তারপর পিছিয়েও গিয়েছিল লাল ফৌজ। কিন্তু শীতের শুরুতে গালওয়ানের তাপমাত্রা নামতেই উত্তেজনার পারদ চড়িয়েছিল পিপলস লিবারেশন আর্মি (পিএলএ)। শুরু হয়েছিল ভারত-চীন যুদ্ধ। সেই রক্তাক্ত ইতিহাস স্মরণে রেখেই সীমান্তে পলক ফেলছে না নয়াদিল্লি।

তাহলে ১৯৬২ সালের যুদ্ধে কী ঘটেছিলো। গালওয়ান উপত্যকায় সে সময় ঘাঁটি গেড়েছিল ভারতীয় গোর্খা রেজিমেন্ট। ৬ জুলাই চীনা প্ল্যাটুন গোর্খা বাহিনীকে দেখতে পায়। তারা হেডকোয়ার্টারে গিয়ে খবর দেয়। ৪ দিন পর ৩০০ জনের বাহিনী গালওয়ান উপত্যকায় জড়ো করে চীন। তারা গোর্খা রেজিমেন্টকে ঘিরে ফেলে। দু’পক্ষের মধ্যে উত্তেজনা শুরু হয় ।

১৫ জুলাই সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত হয়, গালওয়ান পোস্ট থেকে ২০০ মিটার দূরে সরে গিয়েছে চীনা বাহিনী। কিন্তু তা ছিল নেহাতই ‘সাময়িক’। ফের ফিরে আসে চীনা বাহিনী। এরপর তিন মাস ধরে নয়াদিল্লি এবং বেজিংয়ের মধ্যে দীর্ঘ চিঠি আদান প্রদান চলে। এর মধ্যেই গ্রীষ্ম গড়িয়ে শীত চলে আসতে শুরু করে। গালওয়ানের তাপমাত্রাও দ্রুত নামতে থাকে। সেই সুযোগ নিয়ে ওই বছরের ২০ অক্টোবর গালওয়ান পোস্টে আচমকা হামলা চালায় চীনা বাহিনী। নিহত হন ৩৬ জন ভারতীয় সেনা। শুরু হয়ে যায় ভারত চীন যুদ্ধ। গালওয়ানসহ ভারত-চীন সীমান্তের একাধিক এলাকায় চলে যুদ্ধ।

প্রায় ৬ দশক পর এবারও সঙ্ঘাতের কেন্দ্রবিন্দু সেই গালওয়ান। আগের ঘটনাক্রমের সঙ্গে মিলও পাওয়া যাচ্ছে কিছুটা। রোববার রাত থেকে গালওয়ানের সঙ্ঘর্ষস্থল বা পেট্রোলিং পয়েন্ট ১৪ থেকে পিছিয়ে যেতে শুরু করেছে চীনা সেনা। পাশাপাশি, গোগরা হট স্প্রিং ও প্যাংগং হ্রদের উত্তর দিকের অধিকৃত এলাকাতেও চীনা সাজোয়া গাড়িগুলি অনেকটাই পিছিয়েছে। কিন্তু ইতিহাস মনে রেখেই সতর্ক রয়েছে ভারতীয় বাহিনী।

ঢা/কেএম

(Visited 2 times, 1 visits today)