ঐতিহ্যবাহী জামালপুরের ‘মিল্লি’

ঐতিহ্যবাহী জামালপুরের 'মিল্লি'
  •  
  •  
  •  
  •  

প্রত্যেক জেলার নিজস্ব কিছু খাবার,  সংস্কৃতি,  স্থান,  বিশেষ ব্যাক্তি, বা কোন ঘটনার থাকে যা সেটা দেশের সকলের মাঝে বিখ্যাত করে তোলে ইতিহাসের পাতায়  সেই জেলাকে। টাংগাইলের চমচম,  বগুড়ার দই, রাজশাহীর আম তেমনিভাবে আমার জামালপুর জেলারো বিখ্যাত সকলের মাঝে ঠাঁই করে নিয়েছে মিল্লি বা পিঠালি নামে এক ভিন্ন সুস্বাদু খাবার।

মিল্লি জামালপুর জেলাকে দেশের সকলের মাঝে বিশিষ্ট করে তোলেছে। কিন্তু এ মিল্লির প্রচলিত কখন থেকে এ জেলারবাসী সাথে ঘনিষ্ঠ গড়ে তুলেছে, তা কোনো সঠিক ইতিহাস কেউ বলতে পারে না। তবে শত বছরের বেশি সময় ধরে জামালপুরবাসী মিল্লির ঐতিহ্য ধারণ করছে। জামালপুরের শত বছরের ঐতিহ্যবাহী খাবার সবচেয়ে সুস্বাদু আর জনপ্রিয় খাবারের নামই মিল্লি। অনেকে আবার এটাকে মিলানি নামেও ডাকেন। জামালপুর জেলার লোকের কাছে পিঠালি নামেই বহুল পরিচিত। এ খাবার খেলেই শুধু বোঝা যায়, কেন এই মিল্লির নাম শুনলে জিবে পানি চলে আসে।

মিল্লি কিন্তু প্রত্যহদিনের খাবার নয়। বিভিন্ন সামাজিক অনুষ্ঠানে, বিশেষত বিবাহের অনুষ্ঠান, জন্মদিন এবং এই জাতীয় আধিপত্যকে প্রাধান্য দিয়ে আসছে।কারো মৃত্যু ৪০ দিবসের মজলিশ বা কোনো বিশেষ অনুষ্ঠান উপলক্ষ্যে এ খাবার পরিবেশন করা হয়। কিন্তু এই মিল্লি যখন রান্না হয় কারও বাড়িতে তখন যেন উৎসব লেগে যায়, চারদিকে ছড়িয়ে পড়ে মিল্লির সু-ঘ্রাণ। এছাড়া মিল্লি মূলত বড় কোনো উপলক্ষ্যে রান্না হলেও উচ্চবিত্ত থেকে শুরু করে নিম্নবিত্ত পরিবারগুলোতেও মিল্লির প্রচলন রয়েছে। আগেকার দিনে মিল্লি গ্রামীন সালিস বৈঠক, আড্ডা ও বিয়ের অনুষ্ঠানে উপলক্ষ্যে আয়োজন করা হতো। আরেকটা কথা হলো এই মিল্লি বা পিঠালি দেখতে অনেকটাই হালিমের মতো। তবে খেতে অন্য রকম সুস্বাদু।

ইসলাম ধর্মীয় কেউ মারা গেলে ৪০ দিনের দিন যে মজলিশের আয়োজন করা হয় তাকে এ জেলার আঞ্চলিক ভাষায় বেপার বলে। এই বেপারে সব শ্রেণির মানুষ সাঁরি বেঁধে খড়ের উপর বসে কলাপাতায় ভাতের সাথে গরম গরম মিল্লি খান। কলাপাতায় সাঁরি বেঁধে মিল্লি খাওয়া এই অঞ্চলের ঐতিহ্যময় বৈশিষ্ট্য। শুধু তাই নয় এর সাথে স্থানীয় মুসলমানদের ধর্মীয় মূল্যবোধ ঘনিষ্ঠভাবে জড়িত, মুসলমানেরা বিয়ে,আকিকা, সুন্নৎে খতনাসহ নানা ধর্মীয় উৎসবে মিল্লির পরিবেশন করে থাকে। এমনকি কুরবানী ঈদের সময়সহ পারিবারিক ভাবেও বাড়িতেও মিল্লি রান্না করে খেতে পছন্দ করে।

আমাদের জামালপুরে সুস্বাদু এ বিশেষ খাবারটি সকলের খাওয়ার জন্য প্রস্তুত প্রণালী দিলাম। সুস্বাদু এ মিল্লি তৈরিতে যেসব উপকরণ প্রয়োজনপ্র, ধানত চাউলের গুঁড়া, মাংস, আলু, পেঁয়াজ, আদা, গরম মশলা, তেল এবং পানি। প্রথমে আপনার ইচ্ছামতো কিছু টাটকা হাড় মিশ্রিত গরু/খাসির গোস্ত এবং আলুর টুকরা নিতে হবে উপকরণগুলি অবশ্যই তেল, আদা, রসুনে এবং গরম মশলার সাথে ভালভাবে মিশিয়ে নিতে হবে। মিশ্রণটি তৈরি হয়ে যাওয়ার পরে গোস্ত সিদ্ধ হওয়া পর্যন্ত রান্না করা দরকার পরে, স্যুপের ঘনত্ব নিশ্চিত করার জন্য চালের গুঁড়া যোগ করা হয় যা অন্য রকম স্বাদ দেয়। পরিশেষে ও পরিবেশনের আগে রসুন, পেঁয়াজ আর জিরা দিয়ে যে বাগাড়টা দেওয়া এবং তারপরে ভাজা পেঁয়াজ ছড়িয়ে দিতে হবে তাতেই পূর্ণ হয় স্বাদ।

লেখক:
মো: সোহেল রানা
শিক্ষার্থী, ডিপ্লোমা ইন ইলেকট্রিক্যাল, উত্তরা ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজ।

ঢা/এসআর

নভেম্বর ১৫, ২০২০ ৯:২৫

(Visited 96 times, 1 visits today)