এই প্রথম ট্যুরিস্ট ভিসা দিচ্ছে সৌদি

  •  
  •  
  •  
  •  

আন্তর্জাতিক ডেস্ক:  প্রথমবারের মতো ভ্রমণ ভিসা দেওয়ার আনুষ্ঠানিক ঘোষণা দিয়েছে সৌদি আরব। আর এ ভিসার জন্য আবেদনের সময় শুরু হচ্ছে শনিবার থেকে।

শুক্রবার দেশটির সরকার জানায়, প্রথমবারের মতো ভ্রমণ ভিসা অনুমোদনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে তারা। প্রচলিত ধারা ভেঙে প্রথমবারের মতো পর্যটকদের জন্য দুয়ার খুলে দিচ্ছে দেশটি।

তেলের বিকল্প হিসেবে দেশের অর্থনীতিতে নতুন মাত্রা যোগ করতে চায় সৌদি আরব। আর এর অংশ হিসেবে বিদেশিদের ট্যুরিস্ট ভিসা দেওয়ার ঘোষণা দিয়ে বসেছে দেশটি।

তেল ছাড়া দেশের অর্থনীতিকে বৈচিত্রগতভাবে সমৃদ্ধ করতে রক্ষণশীলতা থেকে বেরিয়ে এসে প্রথমবারের মতো এ উদ্যোগ নেয় সৌদি কর্তৃপক্ষ। অবশ্য অনেক বিপত্তি এড়িয়ে চলতি বছরের মার্চেই সৌদি মন্ত্রিসভায় অনুমোদন পেয়েছিল এই পর্যটন ভিসা।

আজ শুক্রবার দেশের প্রাচীন শহর আদ-দিরিয়্যাহতে একটি অনুষ্ঠানে এ ঘোষণা দেয় সৌদি কমিশন ফর ট্যুরিজম অ্যান্ড ন্যাশনাল হেরিটেজ (এসসিটিএইচ)। যে শহরটি বর্তমানে শীর্ষস্থানীয় একটি পর্যটন কেন্দ্র।

বিগত বছরগুলোতে আন্তর্জাতিক বাজারে যেভাবে তেলের দাম পড়ে গেছে, তা বিশ্বের সবচেয়ে বেশি তেল উৎপাদনকারী এই দেশটির শাসকদের বাধ্য করছে পরিবর্তনের গতি বাড়াতে।

ফলে সৌদি আরবের আয় কমে গেছে অর্ধেক। নতুন অবস্থার সঙ্গে খাপ খাইয়ে নিতে তাদের এখন অনেক কঠিন সিদ্ধান্ত নিতে হচ্ছে।

২০১৭ সালে নতুন যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমান সংস্কারের ঘোষণা দেন। ১৯৭০ দশকে সৌদি আরবে সিনেমা হল থাকলেও পরবর্তীতে সেগুলো বন্ধ করে দেওয়া হয়।

পরবর্তীতে ২০১৮ সালে সেই সিনেমা হলও খুলে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

পর্যটন থেকে এখন সৌদি আরব আয়ের চেষ্টা করছে। যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমান ২০৩০ সালের মধ্যে সংস্কার ঘোষণা দিয়েছেন।

কিছুদিন আগেই ড্রোন হামলায় সৌদি আরবের বড় দুটি তেল স্থাপনা মারাত্মক ক্ষতিগ্রস্ত হয়। তাদের তেল উৎপাদন নেমে আসে অর্ধেকে। বিশ্ববাজারেও বেড়ে যায় তেলের দাম। ধারণা করা হচ্ছে তেল বাণিজ্যের ওপর থেকে নির্ভরশীলতা কমাতেই এসব সিদ্ধান্ত নেওয়া হচ্ছে।

পর্যটন প্রধান আহমেদ আল খতিব বলেন, ‘আন্তর্জাতিক পর্যটকদের জন্য সৌদি আরবকে উন্মুক্ত করা আমাদের দেশের জন্য ঐতিহাসিক মুহূর্ত।পর্যটকরা আমাদের সম্পদ দেখে চমকে যাবেন। ইউনেস্কো স্বীকৃত পাঁচটি হেরিটেজ রয়েছে আমাদের।’

শনিবার থেকে বিশ্বের ৪৯টি দেশের নাগরিকদের জন্য অনলাইনে ভ্রমণ আবেদন গ্রহণ শুরু হবে। খতিব বলেন, নারী পর্যটকদের জন্যও তারা পোশাকের ওপর বিধিনিষেধ শিথিল করবো। তবে তাদের অবশ্যই ‘মার্জিত পোশাক’ পড়তে হবে।

সৌদি কমিশন ফর ট্যুরিজম অ্যান্ড ন্যাশনাল হেরিটেজ (এসসিটিএইচ) বলে, বিভিন্ন পর্যটন কেন্দ্র পরিদর্শনসহ দেশে আয়োজিত বিভিন্ন খেলাধুলা বা অনুষ্ঠানে যাতে বিদেশিরা অংশ নিতে পারেন, সেজন্য বিশ্বের ৪৯টি দেশকে পর্যটন ভিসা দেওয়া হবে। এর মধ্যে ৩৮টি দেশ ইউরোপের। সাতটি এশিয়ার। এছাড়া যুক্তরাষ্ট্র, কানাডা, অস্ট্রেলিয়া এবং নিউজিল্যান্ডের পর্যটকরা নতুন এ ভিসার আবেদন করতে পারবেন।

আরব নিউজ বলছে, সৌদির ভ্রমণ ভিসার জন্য খরচ পড়বে প্রায় ৩০০ রিয়াল বা ৮০ ডলার। এছাড়া ভ্রমণ বীমার জন্য অতিরিক্ত খরচ পড়তে পারে আরও ১৪০ সৌদি রিয়াল।

সৌদি আরবে রক্ষণশীল ধর্মীয় নেতাদের নিয়ন্ত্রণ এতটাই কঠোর যে সেখান পরিবর্তনের গতি খুবই ধীর। কিন্তু বিগত বছরগুলোতে আন্তর্জাতিক বাজারে যেভাবে তেলের দাম পড়ে গেছে, তা বিশ্বের সবচেয়ে বেশি তেল উৎপাদনকারী এই দেশটির শাসকদের বাধ্য করছে পরিবর্তনের গতি বাড়াতে।

ঢা/তাশা

 

 

সেপ্টেম্বর ২৭, ২০১৯ ৩:২৫

(Visited 33 times, 1 visits today)