ঈদ যাত্রায় সব পথে দুর্ভোগ, নিরসনে যাত্রীকল্যাণ সমিতির ১২ দাবি

  •  
  •  
  •  
  •  

নিউজ ডেস্ক : এবারের ঈদ যাত্রাতেও বাস, ট্রেন, লঞ্চ, উড়োজাহাজ সব পথেই যাত্রীরা চরম দুর্ভোগে পড়েছেন বলে দাবি করেছে যাত্রী কল্যান সমিতি। আর তা নিরসনে ১২ দফা দাবি জানিয়েছে সংগঠনটি।

ফিটনেসবিহীন ট্রাকে পশু বহন, ফিটনেসবিহীন বাসে যাত্রী পরিবহনে দুর্ঘটনার ঝুঁকি বাড়ছে। রেলপথে টিকিট কালোবাজারি, ছাদে যাত্রী ও শিডিউল বিপর্যয়ের কারণে অবর্ণনীয় দুর্ভোগে ঘরমুখো যাত্রীরা।

নৌপথে চলছে লঞ্চে অতিরিক্ত যাত্রী বোঝাই, অতিরিক্ত ভাড়া আদায়। ফেরিঘাটগুলোয় বসে থাকতে হচ্ছে ৮ থেকে ১২ ঘণ্টা। আর আকাশপথে ৪ থেকে ৫ গুণ বাড়তি দামে টিকিট কিনতে হচ্ছে।

ঈদকে সামনে রেখে ঘরমুখো মানুষ এরকম ভোগান্তির শিকার হচ্ছেন বলে অভিযোগ করেছে বাংলাদেশ যাত্রী কল্যাণ সমিতি।

আজ শনিবার দুপুর ১২টার দিকে ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে সংবাদ সম্মেলনে ঈদযাত্রা নিয়ে এসব অভিযোগ তুলে নৈরাজ্য ও যাত্রী হয়রানী বন্ধের দাবি জানায় বাংলাদেশ যাত্রী কল্যাণ সমিতি।

সংবাদ সম্মেলনে সমিতির মহাসচিব মো. মোজাম্মেল হক চৌধুরী বলেন, বর্ষায় ক্ষতিগ্রস্ত রাস্তাঘাটের কারণে যানবাহনের গতি কমায় ধীরগতির কারণে উত্তরাঞ্চলসহ দেশের বিভিন্ন সড়ক-মহাসড়কে থেমে থেমে যানবাহন চলছে।

অন্যদিকে পথে পশুবাহী ট্রাক থামিয়ে পুলিশ ও বিভিন্ন সংগঠনের নামে চাঁদাবাজির কারণে সড়ক-মহাসড়কে কৃত্রিম যানজটের সৃষ্টি হচ্ছে। এছাড়াও পশুর হাটের কারণেও যানজট সৃষ্টি হচ্ছে।

পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া, শিমুলিয়া-কাঁঠালবাড়ি নৌ-রুটে শতশত যানবাহন পারাপারের অপেক্ষায় থাকায় দীর্ঘ যানজটে আটকা পড়ছে হাজার হাজার ঘরমুখো যাত্রী।

পারাপারের অপেক্ষায় ৮ থেকে ১২ ঘণ্টা বসে থেকে অভুক্ত যাত্রীরা পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া নৌ-ঘাট পার হচ্ছে। প্রতিটি ঈদের মতো এবারো অভ্যন্তরীণ রুটে স্বাভাবিক সময়ের চেয়ে প্রায় চার থেকে পাঁচ গুণ বাড়তি দামে টিকেট কাটতে বাধ্য হচ্ছে আকাশপথের যাত্রীদের।

সংগঠনের পক্ষ থেকে অভিযোগ করা হয়, ঈদকে কেন্দ্র করে সড়ক, নৌ ও আকাশপথে ভাড়া ডাকাতি চলছে। রিকশা, অটোরিকশা, বাস-মিনিবাস, হিউম্যান হলার, লঞ্চ, বিমান সর্বত্র যে যার মতো ভাড়া আদায় করছে।

চট্টগ্রাম থেকে ভোলা, লক্ষ্মীপুর, নোয়াখালী, ফেনী, কুমিল্লা ও উত্তরাঞ্চলের প্রতিটি রুটে স্বাভাবিক সময়ের দ্বিগুণ-তিনগুণ ভাড়া আদায় করা হচ্ছে।

ঢাকা থেকে উত্তরাঞ্চলসহ ফেনী, কুমিল্লা, নোয়াখালীর প্রতিটি রুটের স্বাভাবিক সময়ের দ্বিগুণ-তিনগুণ ভাড়া আদায় করা হচ্ছে।

যাত্রী কল্যাণ সমিতির হিসাবে, এই ঈদে ঢাকা থেকে এক কোটি পাঁচ লাখ, দেশব্যাপী এক জেলা থেকে অপর জেলায় যাতায়াত করবে আরও প্রায় তিন কোটি ৫০ লাখ যাত্রী। সব মিলিয়ে ১২ দিনে যাতায়াত করবে প্রায় চার কোটি ৫৫ লক্ষ যাত্রী।

ঈদযাত্রা নিরাপদ ও নির্বিঘ্ন করতে বেশ কিছু দাবি জানিয়েছে বাংলাদেশ যাত্রী কল্যাণ সমিতি। এর মধ্যে রয়েছে- ১. সড়ক, নৌ ও আকাশপথে অতিরিক্ত ভাড়া আদায়ের নৈরাজ্য বন্ধ করা।  ২. পশুবাহী ট্রাক থামিয়ে চাঁদাবাজি বন্ধ করা। ৩. সড়ক-মহাসড়কের উপর বসা পশুর হাট-বাজার উচ্ছেদ করা। ৪. টোলপ্লাজাগুলোর সবকটি বুথ চালু করা।  ৫. যানজট প্রবণ এলাকায় দ্রুত গাড়ি পাসিং এর উদ্যোগ নেওয়া। ৬. মোটরসাইকেলে ঈদযাত্রা নিষিদ্ধ করা। বেপরোয়া বাইকারদের নিয়ন্ত্রণ করা। ৭. ফুটপাত পরিষ্কার রাখা, পথচারীদের হাঁটার পরিবেশ নিশ্চিত করা।  ৮. পথচারীদের নিরাপদে রাস্তা পারাপার নিশ্চিত করা। ৯. দুর্ঘটনা প্রতিরোধে স্পিডগান ব্যবহার, উল্টোপথে গাড়ি চলাচল বন্ধ করা, ফিটনেসবিহীন যানবাহন চলাচল বন্ধ করা, মহাসড়কে ব্যাটারিচালিত রিক্সা, ইজিবাইক, প্যাডেলচালিত রিকশা, অটোরিকশা, নছিমন-করিমন বন্ধে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ।  ১০. রেলপথে টিকিট কালোবাজারী বন্ধ করা।  ১১. ক্রাস প্রোগ্রামের মাধ্যমে সড়ক মহাসড়ক প্রতি ইঞ্চি অবৈধ দখল ও পার্কিং মুক্ত করা। ১২. নৌ-পথে অতিরিক্ত যাত্রী বোঝাই ও অতিরিক্ত ভাড়া আদায় কঠোর ভাবে নিষিদ্ধ করা।

ঢা/এমএম

আগস্ট ১০, ২০১৯ ৮:২৮

(Visited 3 times, 1 visits today)