ইত্যাদি এবার কিশোরগঞ্জের মিঠামইনে

বিনোদন ডেস্ক: আমাদের ইতিহাস, ঐতিহ্য, সভ্যতা, সংস্কৃতি, পর্যটন ও প্রত্নতাত্ত্বিক জনগুরুত্বপূর্ণ স্থানসমূহে গিয়ে ইত্যাদি ধারণের ধারাবাহিকতায় এবারের পর্ব ধারণ করা হয়েছে নৈসর্গিক সৌন্দর্যের নান্দনিক দৃশ্যাবলীতে সাজানো কিশোরগঞ্জের হাওড়ের মাঝখানে দ্বীপের মত ভেসে থাকা মিঠামইনের হামিদ পল্লীতে।

প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের লীলাভূমি কিশোরগঞ্জের অসাধারণ নৈসর্গিক দৃশ্যের সাথে সঙ্গতি রেখে সাজানো মঞ্চে ধারণ করা হয় এবারের ইত্যাদি। ইত্যাদির ধারণ উপলক্ষে ভাটির দেশ কিশোরগঞ্জে ছিল উৎসবের আমেজ। সকাল থেকেই কিশোরগঞ্জ শহর, করিমগঞ্জ, ইটনা, অষ্টগ্রাম, ভৈরব, নিকলী, কটিয়াদী, হোসেনপুর, ব্রাহ্মণবাড়িয়াসহ বিভিন্ন স্থান থেকে শত শত নৌকা-ট্রলারে করে হাজার হাজার মানুষ আসতে থাকে হামিদ পল্লীতে।

হাওড়ের মাঝখানে দ্বীপটি পরিণত হয় জনসমুদ্রে। এত দুর্গম অঞ্চলে অনুষ্ঠান হওয়া সত্ত্বেও অনুষ্ঠানস্থলে প্রায় লক্ষাধিক দর্শক সমাগম হয়েছিল। নিত্য-নতুন লোকেশনের কারণে প্রতিবার ইত্যাদির সেট নির্মাণেও আসে বৈচিত্র্য। এবারও হাওড় অঞ্চলের জীবন-জীবিকা, প্রাকৃতিক সৌন্দর্য তুলে ধরে জলে ও ডাঙ্গায় শতাধিক নৌকা রেখে নির্মাণ করা হয় নান্দনিক মঞ্চ। ফাগুন অডিও ভিশনের একজন মুখপাত্র জানান, তিন দশক পেরিয়ে চার দশকে পদার্পণ করেছে ইত্যাদি।

সাধারণ মানুষের সমর্থন, সহযোগিতা, ভালোবাসার কারণেই ইত্যাদি এই দীর্ঘ পথ পাড়ি দিতে পেরেছে। ইত্যাদি সব বয়সের, সব শ্রেণী পেশার মানুষের প্রিয় অনুষ্ঠান। তাই ইত্যাদিতে আমরা সবার কথা বলতে চেষ্টা করি। কারণ দেশ গড়ায় সবার অবদান রয়েছে। এবারে কিশোরগঞ্জের মিঠামইনের হাওড় অঞ্চলে ধারণকৃত অনুষ্ঠানটি বিষয় বৈচিত্র্য, স্থান নির্বাচন সবদিক থেকেই হয়েছে ব্যতিক্রমী ও উপভোগ্য।

শিকড় সন্ধানী ইত্যাদিতে যেমন দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চল থেকে প্রচার বিমুখ, জনকল্যাণে নিয়োজিত মানুষদের খুঁজে এনে তাদের তুলে ধরা হয়-তেমনি গত প্রায় তিন দশকেরও বেশি সময় ধরে ইত্যাদি দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলে গিয়ে দেশি-বিদেশি অচেনা-অজানা স্থানকে নিয়ে তথ্যভিত্তিক শিক্ষামূলক প্রতিবেদন প্রচার করছে। প্রত্নতাত্ত্বিক নিদর্শনে সমৃদ্ধ কিশোরগঞ্জ অনেক ঐতিহাসিক ও কীর্তিমান ব্যক্তিদের জন্মস্থান।

এবারের পর্বে রয়েছে কিশোরগঞ্জের ইতিহাস, ঐতিহ্য, প্রাকৃতিক সৌন্দর্যমন্ডিত-দর্শনীয় ও পর্যটকদের জন্য আকর্ষণীয় স্থান এবং কীর্তিমান ব্যক্তিদের উপর তথ্য ভিত্তিক প্রতিবেদন। কিশোরগঞ্জের বাজিতপুর থানার একটি গ্রামের অবিশ্বাস্য অবস্থানে অবস্থিত একটি স্কুলের উপর রয়েছে অনুসন্ধানী প্রতিবেদন। বিদেশি প্রতিবেদনে রয়েছে প্রকৃতির অপরূপ সৌন্দর্যের লীলাভূমি দক্ষিণ আফ্রিকার উপর একটি তথ্যবহুল প্রতিবেদন।

এবারের ইত্যাদিতে মুল গান রয়েছে দু’টি। ইত্যাদিতে সবসময় ভিন্ন আঙ্গিকে বিষয় ভিত্তিক গান প্রচার করার চেষ্টা করা হয়। সেই ধারাবাহিকতায় এবারের ইত্যাদিতে কিশোরগঞ্জের রূপ-বৈচিত্র্য বর্ণনা করে একটি দেশাত্মবোধক গান গেয়েছেন জনপ্রিয় কণ্ঠশিল্পী কুমার বিশ্বজিৎ।

গানটি লিখেছেন খ্যাতিমান গীতিকার মোহাম্মদ রফিকউজ্জামান, সুর করেছেন সুমন কল্যাণ। এছাড়াও কিশোরগঞ্জের কৃষ্টিকথা ও বীরগাঁথা নিয়ে মোহাম্মদ রফিকউজ্জামানের কথায়, হানিফ সংকেতের সুর ও মেহেদীর সঙ্গীতায়োজনে আর একটি গানের সঙ্গে নৃত্য পরিবেশন করেছেন কিশোরগঞ্জেরই দেশবরেণ্য নৃত্যশিল্পী শামীম আরা নিপা।

আর তার সঙ্গে অংশগ্রহণ করেছেন কিশোরগঞ্জ, করিমগঞ্জ ও মিঠামইনের শতাধিক নৃত্যশিল্পী। নাচটিতে লাঠিখেলা দেখিয়েছেন ওসমান গণির নেতৃত্বে বোয়াই জমিদার বাড়ির ঐতিহ্যবাহী লাঠিয়াল দল। নাচের গানে কণ্ঠ দিয়েছেন প্রতিক হাসান ও তানজিনা রুমা।

দর্শকপর্বের নিয়ম অনুযায়ী ধারণস্থান কিশোরগঞ্জকে ঘিরে প্রশ্নোত্তরের মাধ্যমে উপস্থিত লক্ষাধিক দর্শকের মাঝখান থেকে ৪ জন দর্শক নির্বাচন করা হয়। ২য় পর্বে নির্বাচিত দর্শকরা আঞ্চলিক ভাষায় একটি নাট্যাংশে অভিনয় করেন। যা ছিল বেশ উপভোগ্য। এই পর্বে আমন্ত্রিত অতিথি ছিলেন কিশোরগঞ্জের কৃতী সন্তান চিত্রনায়ক ইলিয়াস কাঞ্চন।

নিয়মিত পর্বসহ এবারও রয়েছে বিভিন্ন সমসাময়িক ঘটনা নিয়ে বেশ কিছু সরস নাট্যাংশ। সুপথে আনার উপায়, অন্তর্জালের আসক্তি, বাস্তবতা প্রদর্শনী’র বস্তুহীন কর্মকান্ড, অ্যাকাউন্ট জটিলতা, অনলাইন সেলিব্রেটিসহ বিভিন্ন বিষয়ের উপর রয়েছে বেশ কয়েকটি নাট্যাংশ। বরাবরের মত এবারও ইত্যাদির শিল্প নির্দেশনা ও মঞ্চ পরিকল্পনায় ছিলেন ইত্যাদির নিয়মিত শিল্প নির্দেশক মুকিমুল আনোয়ার মুকিম।

এবারের ইত্যাদিতে উল্লেখযোগ্য শিল্পীরা হলেন-সোলায়মান খোকা, জিয়াউল হাসান কিসলু, কে এস ফিরোজ, সুভাশিষ ভৌমিক, আব্দুল কাদের, আফজাল শরীফ, কামাল বায়েজিদ, শবনম পারভীন, কাজী আসাদ, জিল্লুর রহমান, বিলু বড়–য়া, নিপু, তারিক স্বপন, জামিল হোসেন, মুকুল সিরাজ, সাজ্জাদ সাজু, জাহিদ চৌধুরী, আনোয়ারুল আলম সজল, আনোয়ার শাহী, রেহান অবিদ, নজরুল ইসলাম, সাবরিনা নিসা, ইমিলা, মনজুর আলম, ফাহিম, কাইফ, শাহানা নিসা, শান্ত, নান্নু, তন্নি গ্লোরিয়া, লিউনা অহনিকাসহ আরো অনেকে। পরিচালকের সহকারী হিসাবে ছিলেন যথারীতি রানা ও মামুন।

গণমানুষের প্রিয় অনুষ্ঠান ইত্যাদির এই মিঠামইনের পর্বটি একযোগে বিটিভি ও বিটিভি ওয়ার্ল্ডে প্রচারিত হবে ০৪ অক্টোবর, শুক্রবার-রাত ৮ টার বাংলা সংবাদের পর। ইত্যাদির রচনা, পরিচালনা ও উপস্থাপনা করেছেন হানিফ সংকেত।

নির্মাণ করেছে ফাগুন অডিও ভিশন। ইত্যাদি স্পন্সর করেছে যথারীতি কেয়া কসমেটিকস্ লিমিটেড।

ঢা/এএবি/জেডআই

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here

***ঢাকা১৮.কম এ প্রকাশিত কোনও সংবাদ, কলাম, তথ্য, ছবি, কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ। অনুমতি ছাড়া ব্যবহার করলে কর্তৃপক্ষ আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করবে। ( Unauthorized use of news, image, information, etc published by Dhaka18.com is punishable by copyright law. Appropriate legal steps will be taken by the management against any person or body that infringes those laws. )