আর্থিক ক্ষতির মুখে অর্ধলাখ প্রাথমিক শিক্ষক!

সেপ্টেম্বরেও খুলছে না শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান
  •  
  •  
  •  
  •  

ঢাকা১৮ ডেস্ক : এখনো মুক্তি মেলেনি জাতীয়করণকৃত প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকরা। প্রধান শিক্ষকের চলতি দায়িত্বও তাদের দেয়া হয়নি। এছাড়াও প্রায় অর্ধলাখ শিক্ষককে গৃহীত টাইম স্কেল ফেরত দিতে বলা হয়েছে।

জানা গেছে, ২০১৩ সালের ৯ জানুয়ারি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ২৬ হাজার ১৯৩টি স্কুল জাতীয়করণ করেন। এতে লক্ষাধিক শিক্ষকের চাকরি তিন ধাপে জাতীয়করণ হয়েছে। এর মধ্যে প্রথম ধাপের ৬১ হাজার শিক্ষক টাইম স্কেল প্রাপ্য। এসব শিক্ষকের চাকরিও ১৯৭৪ সালের বিদ্যালয় জাতীয়করণ অধ্যাদেশ অনুযায়ী সরকারি হয়েছে।

কিন্তু অর্থ মন্ত্রণালয়ের গত বছরের ২৪ ফেব্রুয়ারির এক চিঠিতে ১৯৭৫ সালে শিল্পপ্রতিষ্ঠান যে অধ্যাদেশবলে জাতীয়করণ হয়েছে, সেটি শিক্ষকদের ক্ষেত্রে প্রযোজ্য দেখানো হয়। অন্যদিকে ২০১৩ সালের যে অধ্যাদেশে স্কুলগুলো জাতীয়করণ হয়েছে সেটির ৯ ধারায় শিক্ষকদের ‘কার্যকর চাকরিকাল’ গণনা, জ্যেষ্ঠতা নির্ধারণ এবং টাইম স্কেল দেয়ার কথা উল্লেখ আছে। কিন্তু রহস্যজনক কারণে ১৯৭৫ সালের অধ্যাদেশ প্রযোজ্য বলা হচ্ছে।

এই চিঠির পরিপ্রেক্ষিতে মহাহিসাব নিরীক্ষকের কার্যালয় মাঠপর্যায়ে ইতোমধ্যে যে ৪৮ হাজার ৭২০ শিক্ষক টাইম স্কেল নিয়েছেন তা ফেরত দিতে বলেছে। পাশাপাশি আটকে থাকা টাইম স্কেল আরও অন্তত ১৩ হাজার শিক্ষক গ্রহণ করতে পারবেন না।

অর্থ মন্ত্রণালয়ের উপসচিব হায়াত মো. ফিরোজ স্বাক্ষরিত একটি চিঠিতে বলা হয়, কার্যকর চাকরিকাল কেবল ২০১৩ সালের বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় শিক্ষক (চাকরি শর্তাদি নির্ধারণ) বিধিমালার ১০ নম্বর ধারায় উল্লিখিত শুধু পেনশন গণনার ক্ষেত্রে প্রযোজ্য। ২০১৪ সালের ৫ জুন টাইম স্কেল গণনার ব্যাপারে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের পরিপত্র বিধিসম্মত নয়। এতে শিক্ষকদের গ্রহিত টাইম স্কেলের অর্থ ‘আদায়যোগ্য’ হিসেবে উল্লেখ করা হয়। পাশাপাশি ৪৮ হাজার ৭২০ শিক্ষককে উপজেলা পর্যায়ের যেসব হিসাবরক্ষণ অফিস থেকে টাইম স্কেল দিয়েছে সেসব দপ্তরের সংশ্লিষ্টদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করতেও বলা হয়েছে।

এসব বিষয়ে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব আকরাম-আল-হোসেন বলেন, জাতীয়করণকৃত শিক্ষকদের কিছু সমস্যা তিনি দায়িত্ব গ্রহণের আগেই সৃষ্টি হয়েছে। সমাধানে যথাসাধ্য চেষ্টা করেছেন তিনি। আইন ও বিধিবিধান পর্যালোচনা করে সমস্যাগুলো সমাধানের উদ্যোগ নেয়া হবে।

ঢা/কেএম

আগস্ট ২১, ২০২০ ৯:০২

(Visited 565 times, 1 visits today)