আপন নীড়ে সুনামগঞ্জের দিরাই পৌরসভা

আপন নীড়ে সুনামগঞ্জের দিরাই পৌরসভা
  •  
  •  
  •  
  •  

সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি : হাওর বেষ্টিত এলাকা দিরাই শাল্লা। বর্ষায় নাও, হেমন্ত পাও। এভাবেই চলছে যুগের পর যুগ। সরকার পরিবর্তন হয়, কিন্তু এইসব এলাকার মানুষের অবকাঠামোগত কোন পরিবর্তন হয় না। যে দিরাই পৌরসভা দীর্ঘদিন যাবত মানুষকে সেবা দিয়ে যাচ্ছে সে পৌরসভাটি নিজেই তার অবকাঠামো ফিরে পাচ্ছিল না। বর্তমান সরকারের উন্নয়নের ধারাবাহিকতায় দীর্ঘ ২১ বছর পর আপন ঠিকানায় ফিরছে দিরাই পৌরসভা।

বুধবার (৩০ সেপ্টেম্বর) ২ কোটি ৯৬ লক্ষ ৯ হাজার ৭৮২ টাকা ব্যয়ে নবনির্মিত পৌর ভবনের উদ্বোধন হয়েছে। উদ্ভোধন করেন সুনামগঞ্জে দিরাই শাল্লার সাংসদ ড. জয়া সেনগুপ্তা।

জানা যায়, ১৯৯৯ সালে দিরাই উপজেলা সদরকে পৌরসভায় রুপান্তরিত করা হয়। পৌরসভা গঠনের পর থেকেই একটি ভাড়া বাড়ীতে থেকে পৌরসভার কার্যক্রম পরিচালনা হয়ে আসছে। ২০০২ সালের প্রথম নির্বাচনে পৌর চেয়ারম্যান পদে নির্বাচিত হন বিএনপি প্রার্থী হাজী আহমদ মিয়া। ২০১০ পর্যন্ত ৯ বছর মেয়রের দায়িত্ব পালন করে গেলেও পৌর ভবন নির্মাণে কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ করতে পারেননি।

২০১০ সালে পৌরসভার দ্বিতীয় মেয়াদে মেয়র নির্বাচিত হন আওয়ামীলীগ নেতা আজিজুর রহমান বুলবুল। নির্বাচিত হয়েই পৌরসভা কমপ্লেক্স নির্মাণের ঘোষণা দেন তিনি। কিন্তু পৌরসভার নিজস্ব জায়গা না থাকায় ভবন নির্মাণ নিয়ে ধোঁয়াশা দেখা দেয়। স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয় ভবন নির্মাণের জন্য বরাদ্দ দিলেও জায়গা ক্রয় করতে হয় পৌরসভার নিজস্ব আয় থেকে।

২০১৪ সালে তৎকালীন মেয়র আজিজুর রহমান বুলবুলের পরিবার ১৭ শতাংশ ও আরও ছয়জন ভূমি মালিক ১১শতাংশ মোট ২৮শতাংশ জায়গা দিরাই পৌরসভার অনুকুলে রেজিষ্ট্রি করে দান করেন এবং ২৪ শতাংশ ভূমি ক্রয় করে মন্ত্রণালয়ে প্রেরণ করলে পৌর ভবন নির্মাণের জন্য ২কোটি ৯৬ লক্ষ ৯ হাজার ৭৮২ টাকা বরাদ্দ দেয় স্থানীয় সরকার মন্ত্রনালয়।

২০১৫ সালের ৭সেপ্টেম্বর ভবন নির্মাণের দরপত্র আহ্বান করা হয়। কাজ পায় বেলাল এন্টারপ্রাইজ নামক নির্মাণ সংস্থা। দীর্ঘ ৫ বছর কাজ করার পর সম্পন্ন হয় পৌর ভবণ নির্মাণের কাজ।

দিরাই বাজারের ব্যবসায়ী আসাদ উল্লাহ বলেন, সাবেক মেয়র আজিজুর রহমান বুলবুল নির্বাচিত হয়েই ঘোষণা দিয়েছিলেন পৌর ভবন নির্মাণের। তিনি কথা রেখেছেন। নিজের মেয়াদকালেই অফিসিয়াল সব কার্যক্রম শেষ করে গেছেন। আজ উনার স্বপ্নের বাস্তবায়ন হয়েছে।

দিরাই বাজার মহাজন সমিতির সভাপতি কামাল উদ্দিন বলেন, দিরাই পৌরবাসীর স্বপ্ন পূরণ হতে যাচ্ছে। তবে সম্পুর্ণ নির্মাণ কাজ শেষ হওয়ার পর উদ্বোধন হওয়ায় ভাল লেগেছে।

সাবেক মেয়র আজিজুর রহমান বুলবুল বলেন, জায়গা সংক্রান্ত জটিলতার কারেণ ভবন নির্মান করতে পারছিলামনা, পরে আমার স্বজনসহ কিছু ভুমি মালিক জমি দান করার ফলে নির্মাণ প্রক্রিয় সহজ হয়েছে। আজকের এই সফলতার পেছনে সবচাইতে বেশী অবদান আমার নেতা প্রয়াত সুরঞ্জিত সেনগুপ্তের।

বর্তমান মেয়র মোশাররফ মিয়া বলেন, আজ স্বপ্নের বাস্তবায়ন হতে যাচ্ছে, দিরাই পৌরবাসীর জন্য এটি অত্যন্ত আনন্দের। প্রয়াত জাতীয় নেতা সুরঞ্জিত সেনগুপ্তের একান্ত চেষ্টায় সাবেক মেয়র আজিজুর রহমান বুলবুলের আন্তরিকতার কারণে ভবন নির্মণ হয়েছে। আমার মেয়াদকালে কাজ সম্পন্ন করতে পারায় সবার কাছে কৃতজ্ঞ।

ঢা/এএইচ/আরকেএস

সেপ্টেম্বর ৩০, ২০২০ ৯:৪২

(Visited 35 times, 1 visits today)