আজ বিশ্ব অস্টিওপরোসিস দিবস

ostioperosis

নিউজ ডেস্ক: বিশ্ব অস্টিওপরোসিস দিবস আজ। পৃথিবীর অনেক দেশে একই প্রতিপাদ্যে প্রতি বছর অস্টিওপরোসিস দিবসটি পালন করে। এ বছরের প্রতিপাদ্য হলো, ‘হাড়ের প্রতি যত্ন নিন’।

প্রতিবছর অক্টোবর মাসে আজকের দিনে বিশ্বব্যাপী নানা সচেতনতামূলক কর্মসূচির মাধ্যমে দিবসটি পালন করা হয়। দেশে সরকারি পর্যায়ে এই দিবসটি পালনে তেমন গুরুত্ব দেওয়া হয় না। তবে বেসরকারি পর্যায়ে বিভিন্ন হাসপাতাল ও সংস্থা দিবসটি পালন করে থাকে।

অস্টিওপরোসিস বা  Osteoporosis হল ক্যালসিয়াম এর অভাব জনিত একটা রোগ। অস্থির বৃদ্ধির জন্য চাই ভিটামিন ও ক্যালসিয়াম সমৃদ্ধ খাবার। বয়স্ক পুরুষ ও মহিলাদের সাধারণত এ রোগটা হয়ে থাকে।

যেসব বয়স্ক পুরুষ বহুদিন যাবত স্টেরয়েড ঔষুধ সেবন করেন তাদের এবং মহিলাদের মেনোপস হবার পর এই রোগ হবার সম্ভাবনা বেশি।

তাছাড়া যারা অলস জীবন যাপন করে, পরিশ্রম কম করে তাদের এই রোগ হবার সম্ভাবনা থাকে। আর যারা অনেক দিন ধরে আর্থ্রাইটিসে ভুগে তাদের ও এই রোগ হবার সম্ভাবনা বেশি থাকে।

পরিসংখ্যানে দেখা গেছে, সারা বিশ্বে ৫০ বছরের অধিক বয়সের প্রতি তিন নারীর মধ্যে একজন এবং প্রতি পাঁচ পুরুষের মধ্যে একজন অস্টিওপরোসিসে আক্রান্ত হয়। অর্থাৎ নারীদের মধ্যেই এ রোগের ঝুঁকি বেশি।

শৈশবে সঠিক খাদ্য গ্রহণ এবং যে ওষুধগুলি হাড়ের ক্ষয় বৃদ্ধি করে সেগুলি এড়িয়ে চলার চেষ্টাই অস্টিওপরোসিস প্রতিরোধের উপায়।

যাদের অস্টিওপরোসিস আছে, তাদের হাড় ভাঙ্গা প্রতিরোধ করার জন্য যা চাই তা হল ভাল খাদ্য, ব্যায়াম, এবং পতন প্রতিরোধ।

জীবনধারায় পরিবর্তন, যেমন ধূমপান বন্ধ করা এবং মদ্যপান না করা, সাহায্য করতে পারে.যাদের অস্টিওপরোসিসের কারণে আগে হাড় ভাঙেছে হাড়ের ক্ষয় রোধক ওষুধ তাদের জন্য উপকারী। যাদের অস্টিওপরোসিস আছে কিন্তু আগে হাড় ভাঙেনি, তাদের জন্য এগুলি কম কার্যকরী।

দেহে খনিজ লবণ বিশেষ করে ক্যালসিয়াম এর ঘাটতির কারনে এ রোগটি হয়।মহিলাদের মেনোপস হওয়ার পর অস্থির ঘনত্ব ও পুরুত্ব কমতে থাকে।

অস্টিওপরোসিসের নিজের কোন উপসর্গ নেই; এর প্রধান ক্ষতিকর দিক হল হাড় হাড় ভেঙ্গে যাবার ঝুঁকি বৃদ্ধি। যে পরিস্থিতিতে স্বাস্থ্যবান মানুষের হাড় সাধারণত ভাঙবেনা সেখানে ভঙ্গুর হাড় ভেঙ্গে যেতে পারে, অতএব সেগুলি ভঙ্গুরতার জন্য অস্থিভঙ্গ হিসাবে গণ্য করা হয়।সাধারণত মেরুদন্ড, পাঁজর, নিতম্ব এবং কব্জি তে ভঙ্গুরতার অস্থিভঙ্গ ঘটে।

ঘনত্বমাপক যন্ত্রের সাহায্যে অস্থির খনিজ পদার্থের এই রোগটি নির্ণয় করা হয়।রোগের প্রাথমিক অবস্থায় তেমন কোনো উপসর্গ দেখা যায় না।হঠাত করেই সামান্য আঘাতে কোমরের বা অন্য কোনো হার ভেংগে যায়।

প্রতিকার:

  1. পঞ্চাশোর্ধ পুরুষ ও মহিলাদের দৈনিক ১২০০ মিলিগ্রাম ক্যালসিয়াম গ্রহণ করা উচিত।
  2. ননী তোলা দুধ ও দুগ্ধযাত দ্রব্য গ্রহণ করা।
  3. কমলার রস, সবুজ শাকসবজি, সয়া দ্রব্য ও ক্যালসিয়াম সমৃদ্ধ খাবার খাওয়া

প্রতিরোধ:

  1. ক্যালসিয়াম ও ভিটামিন ডি সমৃদ্ধ খাবার খাওয়া।
  2. নিয়মিত ব্যায়াম করা।
  3. সুষম আশ যুক্ত খাবার গ্রহণ করা।

আর এভাবেই এই খনিজ লবনের অভাব জনিত রোগটি প্রতিরোধ করা সম্ভব।

ঢা/তাশা

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here

***ঢাকা১৮.কম এ প্রকাশিত কোনও সংবাদ, কলাম, তথ্য, ছবি, কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ। অনুমতি ছাড়া ব্যবহার করলে কর্তৃপক্ষ আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করবে। ( Unauthorized use of news, image, information, etc published by Dhaka18.com is punishable by copyright law. Appropriate legal steps will be taken by the management against any person or body that infringes those laws. )