‘অনলাইনে ক্লাস চললে দেশ ছাড়তে হবে’

‘অনলাইনে ক্লাস চললে দেশ ছাড়তে হবে’
  •  
  •  
  •  
  •  

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : আমেরিকার নয়া ভিসা নীতির কারণে বেজায় ফাঁপড়ে ভিনদেশি ছাত্রছাত্রীরা। নতুন নির্দেশিকায় বলা হয়েছে, যে বিশ্ববিদ্যালয়গুলি শুধুমাত্র অনলাইন ক্লাস করাচ্ছে, সেখানকার ভিনদেশি ছাত্রছাত্রীদের হয় কলেজ বদল করতে হবে, নয়তো আমেরিকা ছাড়তে হবে।

আমেরিকার ইমিগ্রেশন অ্যান্ড কাস্টমস এমফোর্সমেন্ট (ICE)-র ৬ জুলাইয়ের বিবৃতির প্রথম পংক্তিতে বলা হয়েছে, ‘সম্পূর্ণরূপে অনলাইনে পড়ানো স্কুলগুলিতে পুরো অনলাইনে কোর্স করতে পারবেন না ননইমিগ্রান্ট F1 ও M1 ছাত্রছাত্রীরা, আমেরিকায় থাকতেও পারবেন না।’

এই বিবৃতির ফলে স্বাভাবিকভাবে চরম উদ্বেগে পড়েছেন ভিনদেশি ছাত্রছাত্রীরা। বারবার গিয়ে কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়েরর অনুসন্ধান কেন্দ্রে তাঁরা খোঁজ নিচ্ছেন। নির্দেশিকা সম্পর্কে এখনও স্পষ্ট ধারণা নেই অনেক বিশ্ববিদ্যালয়ের। সাউদার্ন ক্যালিফোর্নিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের আধিকারিকরা জানিয়েছেন, নয়া তথ্যের বিষয়টি তাঁরা ভালো করে খতিয়ে দেখছেন।

ইমিগ্রেশন অ্যাটর্নি সাইরাস মেহতা জানিয়েছেন, এক পাতার নয়া নীতির নির্দেশিকার অর্থ মূলত তিনটি। আমেরিকার যে বিশ্ববিদ্যালয়গুলি শুধুমাত্র অনলাইন কোর্সের মডেলে চলে যাচ্ছে, সেখানে ভর্তি হওয়া ভিনদেশি ছাত্রছাত্রীদের আর F1 ভিসা দেওয়া হবে না। F1 ভিসা নিয়ে তাঁরা আর আমেরিকায় ঢুকতে পারবেন না। ফল সেমেস্টারেও তাঁরা F1 স্টেটাস রক্ষা করতে পারবেন না।

আমেরিকার ৪০-৫০টি প্রদেশে করোনার বাড়-বাড়ন্ত সত্ত্বেও বিশ্ববিদ্যালয়গুলি খোলার ব্যাপারে জোর দিচ্ছে ICE। মেহতা ট্যুইটে জানিয়েছেন, ‘সুতরাং ট্রাম্প কোভিড-১৯-এর অসুরক্ষিত পরিস্থিতিতেই ভিনদেশি ছাত্রছাত্রীদের পড়তে বাধ্য করছেন।’

আমেরিকায় সেপ্টেম্বরের শুরুতে অর্থাত্‍‌ লেবার ডে-র ঠিক পরেই শুরু হওয়ার কথা ২০২০ সালের ফল সেমেস্টার। সেই সময়ে সে দেশের করোনায় মৃতের সংখ্যা ১,৭০,০০০ ছাড়িয়ে যাবে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।

ICE-র এই নির্দেশ এমন একটা সময়ে দেওয়া হল, যখন করোনাভাইরাসে রীতিমতো ধুঁকছে ডোনাল্ড ট্রাম্পের দেশ। এখনও প্রযন্ত আক্রান্ত ২৯ লক্ষেরও বেশি মানুষ। মৃতের সংখ্যা ১,৩০,০০০ ছাড়িয়েছে। মার্কিন বাণিজ্যের ২০১৮-র রিপোর্ট বলছে, মার্কিন অর্থনীতির ৪৫ বিলিয়ন মার্কিন ডলারই আসে ছাত্রসংখ্যার থেকে। ২০১৯ আর্থিক বছরে প্রায় ৩,৯০,০০০ বিদেশি ছাত্রছাত্রী ছাত্রভিসা নিয়ে আমেরিকায় পড়তে গিয়েছেন।

ঢা/কেএম

(Visited 11 times, 1 visits today)